নিউজপলিটিক্সরাজ্য

তৃণমূল বিধায়ক লাভলি মৈত্রের চোখেও ধুলো দিয়েছিলো ভুয়ো আইএএস অফিসার দেবাঞ্জন।

নিজস্ব প্রতিবেদন: কসবা ভ্যাকসিন কান্ডে উত্তাল হয়েছে সারা রাজ্য। বিধায়ক মিমি চক্রবর্তীর তৎপরতায় ধরা পড়েছে ভুয়ো আইএএস অফিসার দেবাঞ্জন দেব। পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে এতদিন অসামাজিক কার্যকলাপ করে বেড়াচ্ছিলো সে। তৃণমূল বিধায়ক মিমি চক্রবর্তীর পাশাপাশি সোনারপুর দক্ষিণের তৃণমূল বিধায়ক লাভলি মৈত্রের সাথে আগে যোগাযোগ করেছিলো দেবাঞ্জন।

জানা গিয়েছে লাভলীকে মিথ্যা পরিচয় দিয়ে সে জানিয়েছিল এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সে সাধারন মানুষের সাহায্য করতে চায়। সেইমতো সেই লাভলীকে জানিয়েছিল যে সোনারপুর দক্ষিণের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে গরিব মানুষদের মাস্ক এবং স্যানিটাইজার বিলি করবে সে। সহজেই তাকে বিশ্বাস করেছিলেন লাভলী মৈত্র। আইএএস অফিসার পরিচয় দিয়ে লাভলী মৈত্রের সাথে যোগাযোগ করেছিলেন দেবাঞ্জন।

আরও পড়ুন-কসবা ভ্যাকসিন কান্ডে সকলকেই দেওয়া হয়েছে নকল ভ্যাকসিন। আজ লিভার পরীক্ষা করাবেন মিমি চক্রবর্তী।

সম্প্রতি দেবাঞ্জনের বিষয়টি সম্পর্কে জানতে পেরে যথেষ্ট চমকে গিয়েছিলেন লাভলী। তিনি সাথে সাথেই এই ভুয়ো আইএএস অফিসারকে চিনতে পেরে যান।সোনারপুর অঞ্চলের বহু মানুষ এই কসবার ভুয়ো ভ্যাক্সিনেশন ক্যাম্পে যোগ দিয়েছিলেন । যেহেতু বিধানসভা এলাকার বাইরে এই কর্মসূচি হয়েছিল তাই এই কর্মসূচি সম্পর্কে অজ্ঞাত ছিলেন লাভলী মৈত্র।

আরও পড়ুন-জম্মু কাশ্মীর নিয়ে বৈঠক শেষ। কি প্রতিক্রিয়া দিলেন জম্মু-কাশ্মীরের নেতারা?

তারপর তিনি যখন জানতে পেরেছেন যে তার এলাকার বেশ কিছু মানুষ ভ্যাকসিন নিতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হয়েছেন তখন তিনি তাদের নামের তালিকা জোগাড় করে তাদের সাথে যোগাযোগ করেন, এবং তিনি আশ্বাস দিয়েছেন তাদের সকলের দ্রুত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে।কলকাতা পৌরসভার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে ওই শিবিরে যে সমস্ত ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে সেই সমস্ত ভ্যাকসিন গুলো ভুয়ো। পুরসভা জানিয়েছে এই ভ্যাকসিন গুলো ছিল হাম, বিসিজি অথবা পেটের।

ডাক্তারের নির্দেশনা ব্যতীত এগুলি মানুষের শরীরে প্রয়োগ করলে মানুষের শরীর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। যার ফলে এই ভ্যাক্সিনেশন ক্যাম্পে ভ্যাকসিন দেওয়া সমস্ত মানুষজন যথেষ্ট আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন।

Related Articles

Back to top button