নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“রক্ত ঝরলেও কেউ পাশে থাকেনা।”- বিজেপির অস্বস্তি কয়েকগুণ বাড়িয়ে ফেসবুকে পোস্ট করলেন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের বিধানসভা ভোটে তৃণমূলের জয়ের পরেই তৃণমূল সমর্থকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে বিজেপি কর্মীদের মারধর এবং তাঁদের বাড়ি ভাঙচুর করার । এছাড়াও জায়গায় জায়গায় বিভিন্ন বিজেপি কর্মীর বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। এছাড়াও বিজেপি মহিলা কর্মীদের সাথে কিছু জায়গায় অভব্য আচরণ করার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ২৪ পরগণা থেকে শুরু করে বীরভূম, কোচবিহার, হাওড়া, কলকাতা, মালদা এছাড়াও বিভিন্ন জেলায় জেলায় আক্রান্ত হয়ে চলেছেন বিজেপি কর্মীরা।

বেশিরভাগ ঘটনার ক্ষেত্রে এ অভিযোগের আঙুল উঠেছে তৃণমূল কর্মীদের দিকে। এই হিংসাত্মক পরিস্থিতিতে ভোট পরবর্তী সময়ে প্রাণ গিয়েছে প্রায় ৩০ জনের। এমনটাই জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।এদিকে বিজেপির নেতা কর্মীরা বারবার শীর্ষ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন যে, আক্রান্ত হলেও বিজেপি নেতৃত্ব কর্মী সমর্থকদের পাশে নেই।

আরও পড়ুন-“চর্বি ঝরে গেলে শরীরের উপকার হয়।”- দলবদলুদের একহাত নিলেন দিলীপ ঘোষ।

এই অবস্থায় বিজেপির অস্বস্তি বাড়িয়ে ফেসবুকে পোস্ট করলেন বিজেপি সাংসদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি ফেসবুকে লিখেছেন,”রাজনীতিকে গ্ল্যামারাইজ করে লাভ নেই। অনেক রক্ত ঝরলেও কেউ পাশে থাকেনা।”রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ের এই বিস্ফোরক ফেসবুক পোস্টে যথেষ্ট অস্বস্তি বৃদ্ধি পেয়েছে বিজেপি শিবিরে।

এমনিতেই বিজেপি ছেড়ে মুকুল রায় বেরিয়ে আসার পরেই বিজেপির অন্তর্কলহ যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদের দিকে আঙুল তুলছেন রাজ্য নেতৃত্বরা। নিরাপত্তার অভাব বোধ করে দলে দলে বিজেপি ছাড়ছে সর্মথকরা। বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে সামিল হচ্ছেন তাঁরা।

আরও পড়ুন-মাতৃহারা পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে সমবেদনা জানাতে গেলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়

প্রথম থেকেই কর্মী-সমর্থকরাও অভিযোগের আঙুল তুলেছেন বিজেপি নেতাদের দিকে। যেখানে বহু বিজেপি কর্মীরা তৃণমূলের হাতে আক্রান্ত হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে সেখানে বিজেপির শীর্ষ নেতারা সম্পূর্ণ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে এমনটাই বলছেন কর্মী সমর্থকরা।

Related Articles

Back to top button