নিউজটেক নিউজরাজ্য

কসবা কেন্দ্রে ভুয়ো টীকা নিয়ে যথেষ্ট পেটব্যাথা মিমির। কম হয়েছে রক্তচাপ‌ও।

নিজস্ব প্রতিবেদন: গত মঙ্গলবার মিমি চক্রবর্তীর উপস্থিতিতে যাদবপুর কেন্দ্রের কসবায় তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের দেওয়া হয়েছিলো করোনার ভ্যাকসিন, সেখানেই মিমিও করোনার প্রথম ভ্যাকসিন নিয়েছিলেন। কিন্তু দেখা যায় এটা একটা ভুয়ো ক্যাম্প। এই ভুয়ো ক্যাম্প চালানোর অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে দেবাঞ্জন দেব নামক এক যুবককে।মাদুরদহের হোসেনপুর নিবাসী দেবাঞ্জন ভুয়ো আইএএস পরিচয়ে অনেক আর্থিক দূর্নীতি করে বেড়িয়েছে।

পুরসভার জাল স্ট্যাম্প প্যাড, নথিপত্র ব্যবহার করতো সে।এদিকে জানা গিয়েছে কসবার ওই ক্যাম্পে মিমিকে দেওয়া হয়েছিলো পেটের সমস্যার ওষুধ ‘অ্যামিকাসিন’ যার দরুণ ওই ওষুধ ভ্যাকসিনের পরিবর্তে নেওয়ার পর পেটের ব্যাথা শুরু হয়েছে মিমির। গতকাল তিনি লিভার পরীক্ষা করিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। এদিকে ওই অভিযুক্ত দেবাঞ্জনের বাড়ি থেকে পাওয়া গিয়েছে যথেষ্ট পরিমাণে অ্যামিকাসিন।

আরও পড়ুন-টীকাকরণ নিয়ে এক দারুণ ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

অর্থাৎ পুলিশ অনুমান করছে ওই শিবিরে সকলকেই এই অ্যামিকাসিন দেওয়া হয়ে থাকতে পারে। পুরসভার ডেপুটি সিএম‌ওএইচ বলেছেন, “যে ভ্যাকসিন ক্যাম্পটিতে দেওয়া হয়েছিলো, তার গায়ে কোনো ব্যাচ নাম্বার বা এক্সপায়ারি ডেট লেখা ছিলো না। শুধু একটা গ্রিন লেভেলে লেখা ছিলো কোভিশিল্ড। এটা রিকম্বিনেট ভ্যাকসিন।

হাম অথবা বিসিজি ভ্যাকসিন‌ও দেওয়া হয়ে থাকতে পারে। আমাদের যে ভায়াল রয়েছে, তার থেকে এই ভায়ালের সাইজ অনেকটাই ছোটো।”মিমি চক্রবর্তী আগে থেকেই লিভারের সমস্যায় ভুগছেন। গতকাল তিনি হাসপাতালে তাঁর লিভার পরীক্ষা করিয়েছেন।

আরও পড়ুন-শীঘ্রই কমবে খাদ্য সামগ্রী সহ অন্যান্য সমস্ত জিনিস পত্রের দাম। আশ্বাস দিলো কেন্দ্রীয় সরকার।

তিনি জানিয়েছেন যে তাঁর রক্তচাপ কমে গিয়েছে, এছাড়াও তাঁর ডিহাইড্রেশনের সমস্যা দেখা দিয়েছে। এছাড়াও তিনি সকলকেই শারীরিক পরীক্ষা করানোর পরামর্শ দিয়েছেন যারা ওই ভুয়ো ভ্যাকসিনেশন কেন্দ্রে ভ্যাকসিন নিয়েছিলেন।

Related Articles

Back to top button