নিজের রিক্সা ভেঙে ভ্যান তৈরি করেই বিনামূল্যে করোনা রোগীদের হাসপাতালে পৌঁছে দিচ্ছেন প্রৌঢ় রবিউল।

নিজের রিক্সা ভেঙে ভ্যান তৈরি করেই বিনামূল্যে করোনা রোগীদের হাসপাতালে পৌঁছে দিচ্ছেন প্রৌঢ় রবিউল।

নিজস্ব প্রতিবেদন: এই ভয়াবহ মহামারি করোনা বহু মানুষকে বাস্তবের নির্মম চিত্র দেখিয়েছে। সমাজে যখন এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বহু মানুষ নির্মমতা দেখাচ্ছে সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েই এমন অনেক মানুষ‌ও রয়েছেন যারা নিজেদের জীবন তুচ্ছ করে দাঁড়িয়েছেন অসহায় মানুষের পাশে। এরকমই একজন হলেন বর্ধমানের রিকশাচালক রবিউল হক। নিজের একটিমাত্র রিকশাকে ভেঙে বানিয়েছেন একটি ভ্যান।

আর এই ভ্যানে করি করোনা রোগীদের নিখরচায় পৌঁছে দিচ্ছেন হাসপাতালে।বর্ধমানের নার্স কোয়াটার মোড়ে গেলেই দেখা মিলবে রবিউলের । ভ্যান নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছেন তিনি। তার ভ্যানে লেখা রয়েছে , ‘শুধুমাত্র করোনা রোগীদের জন্য।’নিজে হাঁপানি রোগী। ‌ রিকশা চালিয়ে পেট চালাতেন তিনি। কিন্তু বর্তমানে রিকশার জায়গাতে টোটোর একচ্ছত্র আধিপত্য। লকডাউন এর কারণে রিকশা চালিয়েও উপার্জন হচ্ছে না ।

আরও পড়ুন-মানুষের ঘরে ঘরে দুধ পৌঁছে দেওয়ার কথা বলেই ট্রোলড্ হলেন দিলীপ ঘোষ।

কিন্তু এই পরিস্থিতিতেও অসহায় করোনা রোগীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন রবিউল। প্রথম থেকেই তিনি অত্যন্ত মানবিক মানুষ বলে পরিচিত। ঈদে পাওয়া জামাকাপড় আরেক গরিব বন্ধুকে দিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। এছাড়াও এক অনাথ যুবক এলাকায় মারা যাওয়ার পর নিজের দায়িত্ব নিয়ে তার সৎকার করেছিলেন রবিউল। নিজের খরচায় তার শ্রাদ্ধশান্তিও করেছেন তিনি। রবিউল বলেছেন,

“চোখের সামনে আমি দেখলাম গরিব করোনা রোগী মাকে ফেলে তার ছেলে বউ চলে গেল , বিনা চিকিৎসায় মারা গেল সেই অসহায় মা। এই গরীব মানুষের জন্য কিছু করলে মৃত্যুর পরেও শান্তি মিলবে। নিজের মাকেও এই করোনার হাত থেকে বাঁচাতে পারিনি বাপ। একজন চিকিৎসক আমাকে পিপিই কিট দিয়েছেন, নার্সদের কাছ থেকে পেয়েছি মাস্ক, স্যানিটাইজার। অসহায় মানুষের জন্য সব সময় কিছু করার চেষ্টা করছি।”

আরও পড়ুন-উত্তরপ্রদেশে দুর্ঘটনায় মৃত মালদহের ২ শ্রমিকের পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন ফিরহাদ হাকিম।

ঈদের আগে রবিউলের মায়ের করোনায় মৃত্যু হয়। মাত্র এক কিলোমিটার যেতে চড়া ভাড়া চেয়েছিলো অ্যাম্বুলেন্স। শেষমেষ ৩ হাজার টাকা দিয়ে টোটোতে চাপিয়ে মা’কে নিয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলেন রবিউল। কিন্তু বাঁচাতে পারেননি মা’কে। সেই মানুষটি সমাজে আঘাত পেয়েও একাই লড়াই করছেন অসহায় মানুষদের জন্য। উনাকে সকলেই কুর্নিশ জানাচ্ছেন।