নিউজ

বৃদ্ধ ভাতা- বিধবা ভাতা যেভাবে বাড়িতে বসেই ৫ মিনিটে আবেদন করবেন, রইল স্টেপ বাই স্টেপ পদ্ধতি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- রাজ্য সরকার প্রতিনিয়ত একের পর এক জনহিতকর কাজ কর্ম করে চলেছে । এবং এই কাজ কর্মের ফলে যে সমস্ত কর্মসূচী বা প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে তার মাধ্যমে উপকৃত হচ্ছে রাজ্যের প্রতিটি বাসিন্দারা । ঠিক তেমনি যেমন মুখ্যমন্ত্রী কিছুদিন আগে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর প্রচলন করেছিলেন । তেমনই বেশ কিছুদিন আগে প্রচলন করেছিলেন স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের ।স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর আওতায় এসে প্রচুর মানুষ বিনামূল্যে চিকিৎসা পেয়েছে এবং চিকিৎসার টাকা খরচ বহন করেছে রাজ্য সরকার । শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গ নয় বাইরের বেশ কয়েকটি হাসপাতাল রয়েছে এর ব্যবস্থা আছে ।

কিন্তু আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন যে বহুৎ বছর আগেই বৃদ্ধ ভাতা প্রতিবন্ধী ভাতা এবং বিধবা ভাতা সূচনা করেছিল রাজ্য সরকার । এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রতিনিয়ত সে ব্যাপারে ওয়াকিবহাল যে এই রাজ্যের প্রতিটি মানুষ অর্থাৎ যারা বৃদ্ধ ভাতা বিধবা ভাতা ও বার্ধক্য ভাতার অন্তর্ভুক্ত তারা সবাই এই সুবিধা সুযোগ পাচ্ছে কিনা ।। তোএবারে পুনরায় দ্বিতীয় পর্যায়ে দুয়ারে সরকার অনুষ্ঠিত হতে চলেছে আগামী ১৬ আগস্ট অর্থাৎ আগামীকাল থেকে ।এবার আজকের প্রতিবেদন আপনাদেরকে জানাবো যে আপনি কিভাবে বৃদ্ধ বৃদ্ধ ভাতা বিধবা ভাতা বা বার্ধক্য ভাতার জন্য আবেদন করতে পারবেন ।

আরও পড়ুন –কোন প্রকল্পে আবেদন করতে কি কি ডকুমেন্ট লাগবে, রইল রাজ্য সরকারের প্রচুর প্রকল্প ও তার সুবিধা!

নারী সুরক্ষা দপ্তর পশ্চিমবঙ্গ সরকার এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট থেকে এই আবেদনপত্রটি আপনি পেয়ে যাবেন ।। আবেদনপত্রটি হাতে নেওয়ার পর আপনি দেখবেন যে প্রথমেই ডান দিকে একটি ছবি দেওয়ার জায়গা আছে । সেখানে আপনাকে পাসপোর্ট সাইজের আপনার রঙিন ছবি এটাচ করতে হবে অর্থাৎ যুক্ত করতে হবে । এবং তার নিচে আপনার স্বাক্ষর থাকা বাঞ্ছনীয় ।তার পাশাপাশি আপনাদেরকে জানিয়ে রাখি যে এই একটা আবেদন পত্রের মাধ্যমে আপনারা কিন্তু তিনটি প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারবেন ।প্রথমেই দেখবেন দেওয়া আছে যে আপনি কিসের জন্য আবেদন করতে চাইছেন । বৃদ্ধ ভাতা বার্ধক্য ভাতা নাকি প্রতিবন্ধী ভাতা । আপনি যেটার জন্য আবেদন করতে চাইছেন শুধু সেখানে রাইট চিহ্ন দেবেন ।

এরপরে পুরা আবেদনপত্রটি আপনার কাছে সহজ এবং সরল হয়ে যাবে । কারণ সেখানে বিশেষ কোনো তথ্য চাওয়া হয়নি যেটা আপনার বুঝতে অসুবিধা হবে । চাওয়া হয়েছে আধার কার্ডের নাম্বার ভোটার কার্ডের নাম্বার । আপনার নাম আপনার পরিবারের সদস্যের নাম মোবাইল নাম্বার ইত্যাদি যাবতীয় তথ্য ।সেই সমস্ত তথ্য পূরণ করে আপনি এই আবেদনপত্রটি দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে জমা করতে পারেন । তার পাশাপাশি আপনি যদি আগে এই সমস্ত প্রকল্পের সুবিধা পেয়ে থাকেন তাহলে আবার পুনরায় পুনর্নবীকরণ করতে পারেন এই আবেদন পত্রের মাধ্যমে ।

Related Articles

Back to top button