নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“যেন কিছু মনে কোরো না, কেউ যদি কিছু বলে”- গানে গানে জবাব দিলেন বাবুল সুপ্রিয়

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় ইস্তফা দেবেন এমনটাই ঘোষণা করেছিলেন ফেসবুক পোস্টে। তাঁর মানভঞ্জনে তৎপর হয়ে ছিল বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বরা। গত সোমবার বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সাথে বৈঠক করেছেন বাবুল সুপ্রিয়। আর এই বৈঠকের পরেই তিনি ঘোষণা করেছেন যে, রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ালেও তিনি আপাতত সাংসদ পদে আসীন থাকবেন।

এছাড়াও তিনি কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা এবং তাঁর বাসভবন ফিরিয়ে দিয়েছেন।এই আবহে ভার্চুয়াল মাধ্যমে অনেক কথাই বলেছেন বাবুল সুপ্রিয়। তিনি তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন সমালোচনার জবাব গানে গানেই দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “যেন কিছু মনে কোরো না, কেউ যদি কিছু বলে।

আরও পড়ুন-‘বিজেপি-তৃণমূল এক নয়।’- কমরেডদের শেখাতে চলেছে সিপিএম নেতৃত্ব।

এই সাড়ে সাত বছরে অনেক সুখস্মৃতি হয়েছে আবার অনেক ক্ষেত্রে হৃদয়‌ও ভেঙেছে। বহু মানুষের সাথে সাক্ষাৎ হয়েছে। কাজ করে অনেক শান্তি পেয়েছি আবার অনেক ক্ষেত্রে অশান্তিও পেয়েছি। যে ধরনের কার্যকলাপ এর সাথে আমাকে মুখোমুখি হতে হয়েছে, যেমন আমাকে গালিগালাজ করা হয়েছে, আমার গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে, এই সমস্ত কিছু আমার জীবনের সাথে কখনোই জড়িয়ে ছিলো না।

আমার বিরুদ্ধে এটা ওটা করে বহু কেস হয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যেই। আগে যখন ভিসার অ্যাপ্লিকেশন লিখতাম তখন আমার বিরুদ্ধে কোনো কেসের উল্লেখ করতে হত না, কিন্তু এখন আমাকে এই ক্রিমিনাল কেসের কলামে ‘ইয়েস’ লিখতে হয়। যখন আমি লিখি আমার খুব খারাপ লাগে কিন্তু এটাই হল বাস্তব। তবে আমি অনেক অভিজ্ঞতা নিয়ে যাচ্ছি।

আরও পড়ুন-আবার বাংলায় কৈলাস বিজয়বর্গীয়। রাজ্যে নেওয়া হল তিন যাত্রার সিদ্ধান্ত।

আমার এখন পঞ্চাশ বছর বয়স, কিন্তু আমার মনে হয় এটা আমার চল্লিশ বলেই মনে হচ্ছে। আমি এখন এটা বলবো না যে আমার সাথে কোনো অন্য দল যোগাযোগ করেছে কি না। এরপরে অনেকেই নিজের মতো করে আমাকে দোষারোপ করবে, ঘোষ, টোষ এবং আরো নানান লোক নানান কথা বলবে। কিন্তু আমি ওইসবে কোনো গুরুত্ব দিই না, আমি নিজেই আমার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

গান আমার গানের জায়গায়। কুছ তো লোক কহেঙ্গে, লোগো কা কাম হ্যায় কহেনা।”তবে বাবুল সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটালেও সাংসদ পদে আসীন থাকায় তাঁকে যথেষ্ট কটাক্ষ করে চলেছে তৃণমূল।

Related Articles

Back to top button