নিউজ

ফ্রিজে ডিম রাখার সময় ভুলেও এই ভুল গুলি করবেন না! হতে পারে বিপদ! জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন:- যদি কোন ব্যক্তি শারীরিক দুর্বলতা ভোগে তাহলে কিন্তু ডাক্তার বাবু অনেক সময় থাকে দিনের দুইটি করে ডিম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন । কারণ ডিমের মধ্যে থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন প্রোটিন যার ফলে শরীর ভেতর থেকে সুস্থ এবং সতেজ হয়ে উঠে । এবং ডিম দিয়ে অন্যান্য অনেক কিছুই খাবার বানানো যায় ।

তাই প্রতিনিয়ত বাজারে বেড়েই চলেছে ডিমের চাহিদা।কিন্তু এই পদ্ধতিতে যদি আপনি ফ্রিজের মধ্যে ডিম রাখেন তাহলে শরীরের উপস্থিত একাধিক উপকারী উপাদান, যেমন- ভিটামিন-এ, ভিটামিন বি২, বি১২, বি৫, ভিটামিন ডি, ই, বায়োটিন, কোলিন, ফলিক অ্যাসিড এবং আয়রন একেবারে ঠিক ঠিক অব’স্থায় থাকবে। ফলে এমন ডিম খেলে নানাভাবে শ’রীরের উপকারও হবে।

ডিম কে অনেকদিন ধরে সংরক্ষণ করে রাখার জন্য আমরা ফ্রিজের ব্যবহার করি । শীততাপ নিয়ন্ত্রিত এই রেফ্রিজারেটরে ডিম রাখার একটি বিশেষ নিয়ম রয়েছে যা আমরা হয়তো অনেকেই সেটা জানি না । আমরা ডিপ ফ্রিজের দরজার মধ্যে যে ডিম রাখার জায়গা থাকে সেই জায়গাতে দিন রেখে দিই । কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে সেই জায়গাতে ডিম রাখা চলবে না ।এতে আপনার শরীরে ক্ষতি হতে পারে ব্যাপক পরিমাণে ।কিভাবে জানুন বিস্তারিত।

বিশেষজ্ঞদের মতে যেখানে আমরা ডিম রাখি অর্থাৎ ফ্রিজের দরজায় তার পাশে ফ্রিজের রেগুলেটর থাকে ।যার ফলে তাপমাত্রা ওঠানামা করে । এর ফলে ডিমে বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে আশঙ্কা অত্যধিক মাত্রায় বেড়ে যায় । এবং সেই ব্যাকটেরিয়া যুক্ত ডিম যদি আমরা প্রতিনিয়ত সেবন করে চলি তাহলে তার ফল কি হতে পারে সেটি আপনাকে নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখেনা । তাই কোন এয়ারটাইট কন্টেইনার এর মধ্যে ভরে সেগুলিকে ফ্রিজের মধ্যে অর্থাৎ দরজা বাদ দিয়ে বাকি অংশে রাখা যেতে পারে।

এর পাশাপাশি বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন যে রান্না করার ডিম ফ্রিজের তিন থেকে চার দিনের বেশি রাখা চলবে না । এবং কাঁচা ডিম ফ্রিজে এক মাসের বেশি রাখা চলবে না । ঠিক এই পদ্ধতিগুলোর যদি আপনি অবলম্বন করেন তাহলে আপনার শরীরে যে কারণের জন্য ডিম খাওয়া হয় সেই কারণগুলি সুষ্ঠু এবং পরিষ্কারভাবে কার্যকরী হবে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button