নিউজপলিটিক্সরাজ্য

হেরে গিয়েও বাংলার বেশ কয়েকজন নেতা নেত্রীদের কেন্দ্রীয় পদ দিতে চলেছে বিজেপি

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলায় বিজেপির যথেষ্ট নড়বড়ে অবস্থা। একুশের ভোটে অনেকটাই আত্মবিশ্বাস নিয়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা রীতিমতো ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন বাংলার মাটিকে নিজেদের কব্জায় করার জন্য। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এবং জে পি নাড্ডা প্রমুখ হিন্দিভাষী নেতারা বারবার বাংলার মাটিতে জনসভা , রোড শো করেছেন। প্রথম থেকেই বিজেপির শ্লোগান ছিল , ‘ইস বার দোশো পার।’

কিন্তু শেষমেশ তৃণমূলের কাছে রীতিমতো পর্যুদস্ত হয়েছে বিজেপি। কিন্তু বাংলায় হারের পরেও এখনো আশাবাদী রয়েছে বিজেপি। যদিও গতকাল মুকুল রায়ের বিজেপি ত্যাগের পর রীতিমতো ভাঙ্গন দেখা গিয়েছে বিজেপিতে। তবুও আবার মন্ত্রিসভায় রদবদল করতে বদ্ধপরিকর বিজেপি।

আরও পড়ুন-বনগাঁয় দিলীপ ঘোষের বৈঠকে অনুপস্থিত বিজেপির তিন বিধায়ক এবং এক সাংসদ।

এবারে বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় স্থান পেতে চলেছেন বাংলার একগুচ্ছ নেতা এবং নেত্রীরা। বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং, নিশীথ প্রামানিক এবং সৌমিত্র খাঁ এর উপরে কেন্দ্রীয় গুরুদায়িত্ব অর্পিত হতে পারে।বিজেপি রাজ্য সভাপতির কার্যকাল শেষ হতে চলেছে কয়েক মাসের মধ্যেই। তাই দিলীপ ঘোষকে এবারে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় গুরু দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে।

আরও পড়ুন-“পার্টির সিস্টেম না জেনে এই ধরণের মন্তব্য করছেন।”- বৈশালীর মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া দিলেন দিলীপ ঘোষ

বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় কেও কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় মহিলা মুখ হিসেবে দেখা যেতে পারে। এছাড়াও উত্তরবঙ্গের কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামানিক কে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর এর ঘাড়েও কেন্দ্রীয় দ্বায়িত্ব অর্পিত হতে পারে।বাঁকুড়ার বিজেপি সাংসদ সুভাষ সরকার বহুদিন থেকেই বিজেপি সাথে যুক্ত আছেন।

আরও পড়ুন-“তৃণমূল একটা ভাঁওতাবাজি দল।”- তৃণমূলের কাছে ক্ষমা চেয়ে বোলপুরে মাইকে প্রচার করলো বিজেপি কর্মীরা।

তিনিও বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় স্থান পেতে চলেছেন বলে জানা গিয়েছে।এছাড়াও বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ অনেক আগে থেকেই বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন।গতকাল মুকুল রায়ের তৃণমূলে প্রত্যাবর্তনের পর এই রাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর মধ্যে একটি বৈঠক সম্পন্ন হয়েছে। এই বৈঠকেই হয়তো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভায় রদবদলের।

এই রদবদলের মাধ্যমেই বাংলার বিজেপি নেতাদের বিজেপিতে ধরে রাখার চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

Related Articles

Back to top button