নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“যে রাজ্যে আইনজীবীরা কোর্টে আসতে পারেন না, সেই রাজ্যে গণতন্ত্র থাকতে পারে না”- ক্ষোভে সোচ্চার হয়ে বললেন কুনাল ঘোষ

নিজস্ব প্রতিবেদন: ত্রিপুরা পুলিশ গ্রেফতার করেছিলো দেবাংশু দের। পুলিশ অভিযোগ করেছিল যে দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহা, জয়া দত্ত, তৃণমূল কর্মীদের নিয়ে বিধিনিষেধ আইন লঙ্ঘন করেছে। খোয়াই থানায় পুলিশ আধিকারিক দের সাথে তীব্র বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েছিলেন তৃণমূল নেতারা। পুলিশকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে,”এই বিধি-নিষেধ লঙ্ঘন করার অভিযোগে ১৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

কিন্তু থানার বাইরে যে ২ হাজার বিজেপি কর্মীরা জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন তাহলে তাদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না কেন?”পুলিশ আধিকারিক দের সাথে তীব্র বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েছিলেন ব্রাত্য বসু, কুনাল ঘোষ, এবং দোলা সেনরা। খোয়াই থানার ভীতরে সমানে বসেছিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনিও পুলিশ আধিকারিক দের সাথে তীব্র বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েছিলেন।

আরও পড়ুন-এবার ত্রিপুরা জয়ের লক্ষ্যে এক নতুন স্লোগান তৈরি করলো রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেস

ত্রিপুরা থেকে বাংলায় প্রত্যাবর্তন করেছেন দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহা, জয়া দত্ত রা। অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের সাথেই কলকাতা প্রত্যাবর্তন করেছেন তাঁরা।গতকালের সাংবাদিক বৈঠক থেকে ত্রিপুরা ইস্যুতে সুর চড়িয়ে কুণাল ঘোষ বলেছেন,”যে রাজ্যে আইনজীবীরা কোর্টে আসতে পারেন না, সেই রাজ্য আর যাই হোক গণতান্ত্রিক রাজ্য হতে পারে না। নির্বাচন কমিশন, ভাঙ্গা গাড়ি গুলো দেখে যান।

আরও পড়ুন-ত্রিপুরা কান্ডের পরিপ্রেক্ষিতে সংসদে ধর্নায় বসার হুঁশিয়ারি দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

এত যে রক্তারক্তি হয়েছে সেই বিষয়ে কথা বলুন। মাথা ফাটলো সেই বিষয়ে কথা বলুন। আজ খোয়াইতে যে ছেলেটিকে মাথায় মারা হয়েছে সে এক্স রে করাতে যাচ্ছে, তার সাথে কথা বলুন। বিজেপির অধিকার কমিশন, দালাল কমিশন অবিলম্বে আপনারা ত্রিপুরায় আসুন।

যদি আপনারা নিরপেক্ষ হন, যদি আপনাদের মেরুদন্ড থাকে তাহলে অবিলম্বে ত্রিপুরা আসুন। আমরা আপনাদের তালিকা দেবো। আপনারা দেখুন কি ধরণের গুন্ডারাজ চলছে ত্রিপুরার মাটিতে।”

Related Articles

Back to top button