সরকারি হাসপাতালে কোভিডের টীকা কোভিশিল্ডের প্রতিটি ডোজের দাম ৪০০ টাকা- ঘোষণা করল সিরাম ইনস্টিটিউট

সরকারি হাসপাতালে কোভিডের টীকা কোভিশিল্ডের প্রতিটি ডোজের দাম ৪০০ টাকা- ঘোষণা করল সিরাম ইনস্টিটিউট

নিজস্ব প্রতিবেদন: দেশের পরিস্থিতি ক্রমশ‌ই খারাপের দিকে চলেছে। করোনার কবলে পড়ছেন অগুনতি মানুষজন। সারা দেশের মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৫৬ লক্ষ ৯ হাজার ৪ জন। দিন দিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এমতাবস্থায় মহারাষ্ট্র দিল্লিতে জারি হয়ে গিয়েছে সাময়িক লকডাউন। এই আবহে গতকাল সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

এই ভাষণে তিনি বলেছেন, “যেসব মানুষ তাদের প্রিয়জনদের চিরতরে হারিয়েছেন তাদের কে আমি সমবেদনা জানাই। ‌ আমাদের সামনে কঠিন বাধা, আমরা ধৈর্য ধরে এই সংকট মোকাবিলা করব । ‌ এছাড়া অন্যান্য রাজ্যেও অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরি করে অক্সিজেনের যোগান দেওয়ার কাজ চলছে। ‌ দেশে আরও মাত্রায় ওষুধ এবং ভ্যাকসিন উৎপাদন করা হচ্ছে। ‌ বর্তমানে ভারতীয় ভ্যাকসিন হলো অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেকটাই সস্তা। ‌

আরও পড়ুন-করোনায় আক্রান্ত মহেন্দ্র সিং ধোনির বাবা মা। ভর্তি রয়েছেন হাসপাতালে

প্রবীণ মানুষদের সবার আগে ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। ‌ কিন্তু এবার কিন্তু সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, ১৮ বছর বয়স হলেই ভ্যাকসিন পাবেন সমস্ত মানুষজন। এছাড়াও ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী সংস্থাগুলি এবার খোলাবাজারে তাদের ভ্যাকসিন বিক্রি করতে পারবে, যার ফলে অনেকটা সমস্যা সমাধান হবে সাধারণ মানুষের ।“প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তৃতার পরেই শ্রীরাম ইনস্টিটিউট ঘোষণা করেছে, কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সরকারি হাসপাতাল গুলোর জন্য ভ্যাকসিন এর প্রতিটি ডোজের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৪০০ টাকা এবং বেসরকারি হাসপাতালে এই টীকার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৬০০ টাকা।

সিরাম ইনস্টিটিউট জানিয়েছে অন্যান্য দেশে তৈরি ভ্যাকসিন এর তুলনায় তাদের এই কোভিশিল্ডের দাম অনেকটাই সস্তা পড়বে। যেখানে, চিনা ভ্যাকসিনের মূল্য ভারতীয় মুদ্রায় ৭৫০ টাকা, আমেরিকার ভ্যাকসিন ১৫০০ টাকা, রাশিয়ার ভ্যাকসিন ৭৫০ টাকা। এক্ষেত্রে সিরাম ইনস্টিটিউট তাদের ভ্যাকসিনের মূল্য কমিয়ে যথেষ্ট স্বস্তি দিয়েছে আপামর জনগণকে।