নিউজটেক নিউজরাজ্য

জাল নোট পাচার। কালিয়াচকে ধৃত সপ্তম শ্রেণীর ফার্স্ট বয়।

নিজস্ব প্রতিবেদন: এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে কালিয়াচকের বুকে। এমনিতেই গত জুন মাসে মালদার এই কালিয়াচকেই ঘটে গিয়েছে সারা দেশে চাঞ্চল্য ফেলে দেওয়া একটি ঘটনা। ১৯ বছরের মহম্মদ আসিফ ফলের রসের মধ্যে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে খাইয়ে ছিলো বাবা, মা, বোন এবং ঠাকুমা কে।

তারপর তাঁরা চেতনাহীন হয়ে পড়লে তাদেরকে শ্বাসরোধ করে খুন করে বাড়ীর গোডাউনে মাটির নিচে পুঁতে রেখেছিল এই ঠান্ডা মাথার খুনি। তারপর তার দাদার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আসিফকে গ্রেফতার করে কালিয়াচক থানার পুলিশ।সেই কালিয়াচকের বুকেই ঘটল আরেকটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা। জালনোট পাচারের ঘটনায় ধরা হলো এক কিশোরকে।

আরও পড়ুন-“উচ্চমাধ্যমিকে রিভিউ করার পর পাশের হার ১০০%”- ঘোষণা করল উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ

কিন্তু বিস্ময়ের সূত্রপাত সেখানেই যখন দেখা যায় ওই কিশোর রীতিমতো এক মেধাবী ছাত্র। সপ্তম শ্রেণীতে পাঠরত ওই কিশোর ক্লাসের ফার্স্ট বয় । তবে ইতিমধ্যেই সে জালনোট পাচার চক্রের অন্যতম সক্রিয় সদস্য হয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে। ওই কিশোরের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে ৪ লক্ষ ৪০ হাজার টাকার জাল নোট।

আরও পড়ুন-বিষমদ কান্ডে আমৃত্য কারাদন্ডের সাজা দেওয়া হল খোঁড়া বাদশাকে

স্থানীয় শাহবাজপুর পাবলিক স্কুলের অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র এই কিশোর কিভাবে জালনোট পাচার চক্রের সাথে যুক্ত হয়ে পড়ল সেই বিষয়টি কিছুতেই ভেবে পাচ্ছেননা তদন্তকারী অফিসাররা। জানা গিয়েছে ওই কিশোরীর কাছ থেকে যে জাল নোট উদ্ধার করা হয়েছে , তার বেশীরভাগটাই ৫০০ টাকার নোট। কালিয়াচক থানার পুলিশ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে ওই কিশোরকে হাতেনাতে পাকড়াও করেছে। কিন্তু রীতিমতো এক মেধাবী ছাত্র নিজে থেকে এই জাল নোট পাচারে নেমেছে নাকি তাকে ভয় দেখিয়ে কেউ নামতে বাধ্য করেছে এই বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে কালিয়াচক থানার পুলিশ।

ধৃত কিশোরকে জেরা করা হচ্ছে রীতিমতো।

Related Articles

Back to top button