নিউজ

করোনা আক্রান্ত হলেন অভিনেতা তাপস পালের অত্যন্ত কাছের মানুষ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা ভারতে মৃত্যুর ভয়াবহ আবহের সৃষ্টি করেছে করোনা। এখনো পর্যন্ত ভারতের বুকে এই ভাইরাসের শিকার হয়েছেন মোট ১ কোটি ৭৯ লক্ষ ৮৮ হাজার ৬৩৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ লক্ষ ১ হাজার ১৬৫ জনের। সুস্থ্য হয়ে উঠেছেন ১ কোটি ৪৮ লক্ষ ৭ হাজার ৭০৪ জন। গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ২৩ হাজার ১৪৪ জন মানুষ। একদিনে মারা গিয়েছেন ২৭৭১ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ লক্ষ ৫১ হাজার ৮২৭ জন।

নিউ নরমাল চালু হ‌ওয়ার পর অনেকেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিলেন যে আবার হয়তো ফিরে আসতে চলেছে সেইসব চিরপরিচিত দৃশ্যগুলি। কিন্তু কার্যত সেই স্বপ্ন আবার ধূলোয় মিশে গিয়েছে। আগের থেকে আরো ভয়ানক আকার ধারণ করেছে এই ভাইরাস। লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। সারাদেশব্যাপী এক ভয়াবহ মৃত্যুর আতঙ্কের সূচনা হয়েছে। সারা দেশের মধ্যে এই মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে অগুনতি মানুষের। এদিকে সারাদেশে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দেওয়ায় চরম সমস্যায় পড়েছেন আক্রান্তরা।

আরও পড়ুন-“অক্সিজেনের যথেষ্ট যোগান রয়েছে।”- দাবি করেছিলেন যোগী আদিত্যনাথ। আগ্রার হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যু হল ৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগীর।

ভারতে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে নেতা মন্ত্রী অনেকেই করোনার গ্রাসে পড়েছেন। করোনা আক্রান্ত হয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কংগ্রেস নেতা রাহুল‌ গান্ধী। এবং অনেক রাজনৈতিক ব্যাক্তিরাই করোনার গ্রাসে পড়েছেন। এবার করোনার শিকার হলেন প্রয়াত টলিউড অভিনেতা তাপস পালের অত্যন্ত কাছের মানুষ। তৃণমূলের অত্যন্ত জনপ্রিয় নেতা ছিলেন তাপস পাল। ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে তিনি কৃষ্ণনগরের তৃণমূল প্রার্থী ছিলেন।

কিন্তু চৌমাহা গ্রামে গিয়ে তাঁর একটি মন্তব্য তাঁর জনপ্রিয়তায় ভাটা এনে দিয়েছিলো। করোনায় টলিউড তারকারা পরপর করোনার গ্রাসে পড়েছেন। কয়েকদিন আগেই করোনার গ্রাসে পড়েছেন অভিনেতা জিৎ, অভিনেত্রী শুভশ্রী, পায়েল প্রমুখেরা। এবার করোনার থাবায় পড়লেন তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী পাল। ‘রান্নাঘর’ এর সঞ্চালিকা সুদীপা চট্টোপাধ্যায় সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্টে লিখেছেন যে, “স্বর্গীয় শ্রী তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী পাল করোনায় আক্রান্ত। তাঁর অবস্থা সঙ্কটজনক এবং তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের একমাত্র মেয়ে সোহিনী পাল লড়াই করে চলেছেন। তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছেন মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।”

Related Articles

Back to top button