“বেশী খেলতে যেওনা, শীতলকুচির খেলা খেলে দেবো”- বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর

“বেশী খেলতে যেওনা, শীতলকুচির খেলা খেলে দেবো”- বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে হিংসা হানাহানি অব্যাহত রাজ্যের দিকে দিকে। প্রথম দফার ভোট শান্তিপূর্ণভাবে মিটলেও, দ্বিতীয় দফা থেকে নন্দীগ্রামে এবং রাজ্যের আরো বিভিন্ন প্রান্তে যথেষ্ট হিংসা-হানাহানি ঘটনা দেখা যাচ্ছে। ‌ সবথেকে চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহারের শীতলকুচি তে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের আক্রমণ করার চেষ্টা করায় জ‌ওয়ানদের গুলিতে প্রাণ গিয়েছে ৪ জন তৃণমূল সমর্থক এর।

আবার ওই বুথেই ভোট চলাকালীন তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে বোমা এবং গুলি ছোঁড়ার অভিযোগ উঠেছে । তাদের গুলির আঘাতে মারা গিয়েছেন আনন্দ বর্মন নামক এক ভোটার। এই ঘটনা প্রসঙ্গে আবার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। একটি জনসভায় তিনি বলেছেন,”এত দুষ্টু ছেলে কোথা থেকে এলো? ওই দুষ্টু ছেলে গুলো কালকে গুলি খেয়েছে কোচবিহারের শীতলকুচিতে। এই দুষ্টু ছেলেরা থাকবে না বাংলায় ।

আরও পড়ুন-“তৃণমূলকে ভয় না পেয়ে পরিবর্তনের লক্ষ্যে বেরোচ্ছেন মানুষ।”- বললেন দিলীপ ঘোষ।

যদি কেউ আইন হাতে তুলে নিতে আসে তাকে যোগ্য জবাব দেওয়া হবে। আগামী ১৭ ই ফেব্রুয়ারি আপনারা দলে দলে ভোট দিতে যাবেন, কেউ আপনাদের লাল চোখ দেখাতে পারবে না। সেন্ট্রাল‌ ফোর্স থাকবে। শীতলকুচিতে দেখেছেন কি হয়েছে, জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে।”আবার বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু মন্তব্য করেছেন, “আমি সায়ন্তন বসু বলে যাচ্ছি, খেলা বেশী খেলতে যেওনা, শীতলকুচির খেলা খেলে দেবো। সকালেই আনন্দ বর্মনকে মেরে দিলো। বিজেপির শক্তিকেন্দ্র প্রমুখের শড়াই। শোলে সিনেমার একটা ডায়লগ ছিলো, এক মারোগে তো চার মারেঙ্গে। তাই ওখানেও চারটেকে মিটিয়ে দেওয়া হয়েছে।”