নিউজটেক নিউজরাজ্য

বন্যা পরিস্থিতি চাক্ষুষ করতে আগামীকাল হাওড়া এবং হুগলি রওনা হচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: টানা বৃষ্টিতে কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় কোমরসমান জল জমা হয়ে বিপর্যস্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিলো। কলকাতার ধর্মতলা থেকে শুরু করে পার্কস্ট্রিট, এক্সাইড মোড়, ময়দান, বিধাননগর, দমদম সহ বিভিন্ন জায়গায় নিকাশী ব্যবস্থার বেহাল দশার দরুণ ব্যাপক জল জমে গিয়েছিলো। দক্ষিণবঙ্গের হুগলির অন্তর্গত ঘাটাল, খানাকুল , আরামবাগে নদীবাঁধ ভেঙে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ঘাটালের বিস্তীর্ণ অঞ্চল টানা চারদিন ধরে জলমগ্ন হয়ে রয়েছে।

ইতিমধ্যেই ঘাটালে মোতায়েন রয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের কর্মীরা। ঘাটালের বিভিন্ন জায়গা থেকে হাজার হাজার মানুষকে উদ্ধার করে ত্রাণশিবিরে পাঠানো হয়েছে। সমগ্র ঘাটালের বহু এলাকায় জল ঢুকে গিয়েছে। ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছেন ঘাটালবাসী।

আরও পড়ুন-টানা বৃষ্টিতে চারদিন ধরে জলমগ্ন ঘাটালের বিস্তীর্ণ এলাকা।

একতলা বাড়ি গুলির প্রায় বেশীরভাগ অংশটাই জলের তলায় ডুবে গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।এছাড়াও হাওড়ার উদয়নারায়ণপুরে , আমতায় বহু গ্রাম জলের তলায় চলে গিয়েছে। দামোদর এবং রূপনারায়ণের জল ঢুকেই এই সমস্যার সূত্রপাত হয়েছে।বেশ কিছু জায়গায় দেখা গিয়েছে, গবাদী পশুদের নিয়ে ছাদে উঠে ত্রিপল খাটিয়ে রয়েছেন মানুষজন।

অনেকেই বন্যা পরিস্থিতি সত্ত্বেও বাড়ি ছেড়ে যেতে রাজি হচ্ছেন না। ঘাটালের বিস্তীর্ণ জায়গায় পানীয় জলের পাউচ পৌঁছে দিচ্ছে বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের কর্মীরা। এছাড়াও ত্রাণ পাঠানো হয়েছে ওই সমস্ত এলাকায়।জানা গিয়েছে হাওড়া এবং হুগলির বন্যা কবলিত এলাকা গুলি পরিদর্শন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ‌

আরও পড়ুন-জামিনে ছাড়া পাওয়ার আগেই ফের গ্রেফতার শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ রাখাল বেরা

আগামীকাল তিনি এই বন্যা দুর্গত এলাকায় পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে যাবেন বলে জানা গিয়েছে। ‌ ইতিমধ্যেই খানাকুলে ৮০ টি ত্রাণ শিবির খোলা হয়েছে। হাওড়া উদয়নারায়নপুরে প্রায় ৩৫ টি ত্রাণশিবির খোলা হয়েছে।মুখ্যমন্ত্রী হাওড়া এবং হুগলির এই বন্যা কবলিত এলাকা গুলোতে পৌঁছে সমস্ত পরিস্থিতি খতিয়ে দেখবেন।

Related Articles

Back to top button