নিউজদেশপলিটিক্স

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রন জানালেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: কয়েকদিন আগেই দিল্লি গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ‌ তিনি পশ্চিমবঙ্গ ছাড়িয়ে তৃণমূলকে এবার সর্বভারতীয় স্তরে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছেন। ‌ ত্রিপুরা থেকে শুরু করে অসম, উত্তরপ্রদেশ, এবং আরও নানান রাজ্যে তিনি তৃণমূলের শাখা বিস্তারে সচেষ্ট হয়েছেন। ‌ তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপরে তিনি গুরুদায়িত্ব অর্পণ করেছেন।

দিল্লি গিয়ে তিনি কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী, কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সাথে বৈঠক করেছিলেন। এছাড়াও তিনি সাক্ষাৎ করেছিলেন কবি জাভেদ আখতার এবং শাবানা আজমির সাথে। তিনি দিল্লি পৌঁছে বিজেপি বিরোধী দলগুলোকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হ‌ওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন।এবার আগামী ২০ শে আগস্ট একটি ভার্চুয়াল বৈঠক ডেকেছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী।

আরও পড়ুন-এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পথে হেঁটে ত্রিপুরা, অসমে শাখাবিস্তারের পথে আইএস‌এফ

এই ভার্চুয়াল বৈঠকে উপস্থিত থাকার জন্য তিনি আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। এছাড়াও জানা গিয়েছে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে এনসিপি’র প্রধান শরদ পাওয়ার, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে এবং তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী এমকে স্ট্যালিনকেও। এছাড়াও আভাস মিলেছে যে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বিরোধী নেতা নেত্রীদের নিয়ে একটি নৈশ ভোজের আয়োজন করতে চলেছেন কংগ্রেস সভানেত্রী। এই নৈশভোজের আগেই তিনি উক্ত ভার্চুয়াল বৈঠক করতে চলেছেন।

‌ বিজেপি বিরোধী শক্তি গুলির ঐক্যবদ্ধতা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে চাইছেন কংগ্রেস সভানেত্রী।বর্তমানে কংগ্রেসের বাদল অধিবেশন জারি রয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বেশকিছু ইস্যুতে মিছিল করেছে বিজেপি বিরোধী ১৫ টি রাজনৈতিক দল।‌আগামী ২০ শে আগস্ট কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী কংগ্রেস শাসিত রাজ্য গুলির মুখ্যমন্ত্রী দের সাথে আলোচনা সম্পন্ন করবেন। এই আলোচনা পর্বে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন-এবার সমগ্র কংগ্রেস দলের‌ই অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করার অভিযোগ তুললো কংগ্রেস

এদিকে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে যথেষ্ট উত্তাল হয়ে রয়েছে সংসদ। আজ বৃহস্পতিবার এক সম্মেলনে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় যথেষ্ট সোচ্চার হয়েছেন কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে। তিনি বলেছেন,”কেন্দ্রীয় সরকার সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সংসদ চালাতে চাইছে না। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী সংসদের অধিবেশনে অনুপস্থিত থাকেন।

বাদল অধিবেশনে হুট করে ওবিসি বিল‌ পাশ হল, কিন্তু সেদিন‌ও সংসদে অনুপস্থিত অমিত শাহ আর নরেন্দ্র মোদী। এটা কি সত্যিই গনতন্ত্র চলছে? বিতর্কের মধ্যে এই বিলগুলো পাশ করানো হচ্ছে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং তাঁর ৫ বছরের প্রধানমন্ত্রীত্বের সময়ে ২১ টি প্রশ্নের নিজে উত্তর দিয়েছিলেন, কিন্তু বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সংসদ থেকে শুধুমাত্র পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।”

Related Articles

Back to top button