নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“উনার সাথে চাণক্যের কোনো মিল নেই।”- মুকুল প্রসঙ্গে বললেন অর্জুন সিং।

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিজেপির সাথে সম্পর্ক ত্যাগ করে তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন করেছেন তৃণমূলের চাণক্য মুকুল রায়। কিন্তু মুকুল রায় কে চাণক্য বলতে নারাজ বিজেপি থেকে শুরু করে তৃণমূলের নেতা নেত্রীরাও। গত শুক্রবার তৃণমূল ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে তৃণমূলে যোগদান করেছেন মুকুল রায়। মুকুল রায়ের তৃণমূলে প্রত্যাবর্তনে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বাংলার রাজ্য রাজনীতিতে ।

বিজেপির নেতা কর্মীরা ব্যাপক বিক্ষোভ দেখিয়েছেন মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে। মুকুল রায় কে গদ্দার, বেইমান আখ্যা দিয়েছেন বিজেপির সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। এছাড়াও বিজেপির বেশীরভাগ নেতা কর্মীরাই মুকুল রায়কে বেইমান বলে অভিহিত করছেন। বিচ্ছেদের সুর অনেক আগেই বেজে উঠেছিলো মুকুল রায়ের গলায়।

আরও পড়ুন-“বিজেপিতে থাকতে হলে তপস্যা, ত্যাগ করতে হবে”- মুকুল রায়কে কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের।

মুকুল রায়ের পরেই তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন করতে পারেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে রাজীবকে তৃণমূলে ফিরিয়ে নিতে মত নেই বেশীরভাগ কর্মী সমর্থকদের। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন যে, “আসল চাণক্য মুকুল রায় নন, আসল চাণক্য হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।”এদিকে ভাটপাড়ার বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেছেন, “আমি চাণক্য পুরো পড়েছি।

আরও পড়ুন-মুকুল রায়ের তৃণমূলের প্রত্যাবর্তনের পরেই চাণক্যের শ্লোক উদ্ধৃত করে টুইট করলেন রাজ্যপাল।

চাণক্যের সমস্ত নীতি আমি পড়েছি। আমি কখনোই দেখিনি উনার কোন নীতি চাণক্যের সাথে মিল খায় ! কে কবে বলে দিয়েছে আর উনি চাণক্য হয়ে গেলেন? মুকুল রায়কে আমার থেকে বেশী কেউ চেনে না। মুকুল রায় সবসময় রাজনীতি করেছেন নিজের ফায়দার জন্য।

উনি সব সময় ডবল রাজনীতি করে এসেছেন । উনি ভেবেছিলেন বিজেপি ক্ষমতায় থাকবে উনিও নিরলস ক্ষমতা ভোগ করবেন। এখন তৃণমূল ক্ষমতায় এসেছে তাই এবার তৃণমূলে ক্ষমতা ভোগ করতে গিয়েছেন।”

Related Articles

Back to top button