নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“যত তাড়াতাড়ি সম্ভব উপ নির্বাচন করা হোক। সাতদিন সময় দিলেই যথেষ্ট।”- বললেন মুখ্যমন্ত্রী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে মোট আট দফায় এই নির্বাচন হওয়ার জন্যই সারারাত যে ভয়াবহ হারে কোভিড ছড়িয়ে পড়েছে বলে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেছিলেন কেন্দ্রীয় নেতা মন্ত্রীরা বাইরে থেকে হাজার হাজার লোক নিয়ে বাংলার মাটিতে এসেছেন, যার দরুন বাংলার করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। গতকাল করোনা পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করার জন্য নবান্নে একটি সাংবাদিক বৈঠক ডেকেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

এই সাংবাদিক বৈঠকে উপ নির্বাচনের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেছেন তিনি। এছাড়াও তার মুখ্য উপদেষ্টা আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এর প্রসঙ্গ তুলে তিনি কেন্দ্রীয় সরকারকে আক্রমণ করেছেন। উক্ত সাংবাদিক বৈঠকে তিনি উপনির্বাচন সম্পর্কে বলেছেন,”আমরা চাইছি সাতটি আসনে উপনির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে, সেই উপনির্বাচন দ্রুত সম্পন্ন হোক।

আরও পড়ুন-“বিধায়ক থাকলে তবেই পিএসির চেয়ারম্যান হতে পারবেন”- মুকুলকে আক্রমণ শুভেন্দুর

‌ প্রচারের জন্য মাত্র এক সপ্তাহ সময় দিলেই হবে। এই এক সপ্তাহের মধ্যেই আমরা ছোট করে প্রচার সেরে নেব। এই প্রচারে করোনা বিধি কঠোর ভাবে মানা হবে।

বিজেপি সারা দেশের জন্য একটি ব্যাধি হয়ে উঠেছে। ২০২৪ সালে আমরা সবকিছু বদলে দেবো। বিজেপি যা ইচ্ছা তাই আচরণ করছে। আলাপনের মত একজন সৎ অফিসারের সাথে অমানবিক ব্যবহার করা হচ্ছে।”

আরও পড়ুন-শীতলকুচি কান্ডে প্রাক্তন পুলিশ সুপার দেবাশীষ ধরের মোবাইল বাজেয়াপ্ত করলো সিআইডি।

এই উপনির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রীর ভাগ্য নির্ভর করছে। ‌ যেহেতু তিনি নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর কাছে হেরে গিয়েছেন তাই আগামী যেকোনো একটি উপনির্বাচনে তাকে ছয় মাসের মধ্যে জিততে হবে তবেই তাঁর মুখ্যমন্ত্রী পদ বজায় থাকবে।

Related Articles

Back to top button