“নিজেদের কর্মীকেই গুলি করে মেরেছে বিজেপি”- শীতলকুচি কান্ডে বললেন মুখ্যমন্ত্রী

“নিজেদের কর্মীকেই গুলি করে মেরেছে বিজেপি”- শীতলকুচি কান্ডে বললেন মুখ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে হিংসা হানাহানি অব্যাহত রাজ্যের দিকে দিকে। প্রথম দফার ভোট শান্তিপূর্ণভাবে মিটলেও, দ্বিতীয় দফা থেকে নন্দীগ্রামে এবং রাজ্যের আরো বিভিন্ন প্রান্তে যথেষ্ট হিংসা-হানাহানি ঘটনা দেখা যাচ্ছে। ‌ সবথেকে চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহারের শীতলকুচি তে।

কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের আক্রমণ করার চেষ্টা করায় জ‌ওয়ানদের গুলিতে প্রাণ গিয়েছে ৪ জন তৃণমূল সমর্থক এর। আবার ওই বুথেই ভোট চলাকালীন তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে বোমা এবং গুলি ছোঁড়ার অভিযোগ উঠেছে । তাদের গুলির আঘাতে মারা গিয়েছেন আনন্দ বর্মন নামক এক ভোটার। এই ঘটনা প্রসঙ্গে বিজেপিকে একহাত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জনসভা থেকে বলেছেন,

“শীতলকুচির ঘটনা সম্পূর্ণ প্ল্যানমাফিক করা হয়েছে। এসপির সঙ্গে বিজেপি প্ল্যান করে এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। ‌আমি তদন্ত করে সত্যি ঘটনা বাইরে বের করে আনব। ‌ ওখানে একটা মেয়েকে আগে পাঠিয়ে তাকে বলতে বলেছিল যে তার বাচ্চাকে নাকি লুঠ করে নিয়ে গেছে।

আরও পড়ুন –কয়লা কান্ডে আরও এক পুলিশ কর্তা কে ডেকে পাঠালো সিবিআই। আগামীকাল হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এই ঘটনা আগে থেকে প্ল্যান করে রেখে তারপর এই গুলি চালায় বাহিনী। ‌ মনে রাখবেন যারা যারা গুলি চালিয়েছিল আমি তাদের সব নাম পেয়ে গিয়েছি। কাউকে ছাড়া হবে না। সবাইকে উপযুক্ত শাস্তি দেবো আমি। বিজেপি পার্টি টা কে নিষিদ্ধ করে দেওয়া উচিৎ।

বিজেপির মতে রাজনীতি হল খালি গোলাগুলি চালানো। সমস্ত মানুষের দরকার এদের রাজনৈতিকভাবে বয়কট করে দেওয়ার। ‌ বিজেপি নিজেই নিজের কর্মীদের মারছে। সকালেই রাজবংশী তরুণ ছেলেটাকে মেরে দিলো। বিজেপি নিজেই নিজেদের সর্বনাশ করছে। বাংলাদেশের মানুষের অনুপ্রবেশকারী বলেন আবার বাংলাদেশেই ভোট চাইতে গিয়ে ছিলেন। মতুয়াদের ভোট চেয়েছেন। রোজ হিন্দু-মুসলমান করছে বিজেপি। এই নির্বাচনে বিজেপি গো হারা হেরে যাবে। ‌ বাংলাকে কিছুতেই উত্তরপ্রদেশ-গুজরাট হতে দেবো না।”