“বিজেপি বলছে ডবল ইঞ্জিন সরকার করব, কিন্তু এটা হবে কি করে?”- বিজেপিকে কটাক্ষ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

“বিজেপি বলছে ডবল ইঞ্জিন সরকার করব, কিন্তু এটা হবে কি করে?”- বিজেপিকে কটাক্ষ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদন: পায়ে প্লাস্টার, চলাফেরায় ভরসা হুইল চেয়ার। কিন্তু এই প্রতিকূল শারীরিক পরিস্থিতিতেও অদম্য জেদ এবং মানসিক শক্তি কে পাথেয় করে নিজেকে নিয়োজিত করে রেখেছেন প্রচারাভিযানের মধ্যে। রাজ্যে বিজেপি কে প্রতিহত করতে তিনিই একমাত্র ভরসা তৃণমূলের।

তৃণমূলের সাংগঠনিক শক্তির অন্যতম চালিকাশক্তি তিনি। তার হাত ধরেই তৃণমূল বহু চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে আজ পশ্চিমবঙ্গের তথা ভারতের অন্যতম শক্তিশালী সাংগঠনিক দল। একুশের ভোটে বিজেপি যখন ছক কষছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে নবান্নের সিংহাসন ছিনিয়ে নেওয়ার তখন মুখ্যমন্ত্রীও দাতে দাঁত চেপে লড়াই করে যাচ্ছেন কেন্দ্রীয় শক্তির বিরুদ্ধে। একের পর এক জনসভায় তার ক্ষুরধার এবং শাণিত বাক্যবাণে তিনি ধরাশায়ী করছেন বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বদের। পাশাপাশি তিনি কঠোর সমালোচনা করছেন সংযুক্ত মোর্চার‌ও।

আরও পড়ুন –“কল্যাণীকে যুক্ত করা হবে মেট্রো নেটওয়ার্কের সাথে”- কল্যাণীর জনসভায় বললেন মোদী

আজ জনসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী আবার কটাক্ষের তীর ছুঁড়লেন বিজেপির দিকে। তিনি বলেছেন, “বিজেপির নেতারা বাংলার সম্পর্কে কিছুই জানেনা। বলছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্ম হয়েছিলো শান্তিনিকেতনে। বীরসা মুন্ডা বলে আরেকজনের গলায় মালা দিয়ে চলে যাচ্ছে। বলছে ডবল ইঞ্জিনের সরকার হবে, কিন্তু ডবল ইঞ্জিন আয়েগা ক্যায়সে ? দিল্লি মে কেয়া হো রাহা হে ? সব বেচ দিয়া, রাফায়েল‌ ধরা পড়েছে।

লকডাউনে যা ইচ্ছা করেছে, গায়ের জোরে। কি বিচার হয়েছে চারজনকে গুলি করার পর ? যেদিন ভোট ঘোষণা হয়েছে সেদিনই বিজেপি সমস্ত কেন্দ্রীয় বাহিনী অ্যাপয়েন্ট করে দিয়েছে। এখানে অঘোষিতভাবে ৩৫৬ ধারা জারি করে নির্বাচন করাচ্ছে। আমি ওদের চ্যালেঞ্জ করছি। আমার রাজ্যে আমাকে জিজ্ঞাসা না করেই যা খুশী তাই করছে নির্বাচন কমিশন। প্ল্যানিং টা কি ? আমাকে মার্ডার করার ? আমি বলেছিলাম যে নরেন্দ্র মোদী আসুন আমার সাথে খোলাখুলি তর্কে বসুন। আমি কয়েকটা কথা শুধু জিজ্ঞাসা করবো আপনাকে।”