নিউজদেশপলিটিক্স

“স্বাধীনতা দিবসের দিন বিজেপি নেতা মন্ত্রীদের পতাকা তুলতে দেব না”- হুমকি দিল কৃষক সংগঠনগুলি

নিজস্ব প্রতিবেদন: দিল্লি সীমান্তে অবস্থান আন্দোলন করছে কৃষক সংগঠনগুলি। এমনিতেই কৃষক সংগঠনগুলির দিনের-পর-দিন তাদের আন্দোলন আরও জোরালো করে চলেছে। তিনটি কৃষি বিলকে প্রত্যাহার করার দাবিতে তারা গত ২৬ শে জানুয়ারি লালকেল্লায় যথেষ্ট বিক্ষোভ দেখিয়েছিলো। তাদের এই আন্দোলনকে হাতিয়ার করে কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর যথেষ্ট চাপ সৃষ্টি করে চলেছে মোদি বিরোধী সংগঠন গুলি।

এদিকে কয়েকদিন আগেই দিল্লির যন্তর মন্তরে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখিয়েছে বিদ্রোহী কৃষকরা। ‌ দিল্লি সীমান্তে আন্দোলনরত কৃষক সংগঠনগুলির হুমকি দিয়ে জানিয়েছে যে, আগামী ১৫ ই আগস্টের দিন তারা বিজেপির নেতানেত্রীদের ভারতের জাতীয় পতাকা তুলতে দেবে না। সেই সাথে তারা হুমকি দিয়েছে যে হরিয়ানায় ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তুলবে তারা। স্বাধীনতা দিবসের দিন ট্রাক্টর প্যারেড বের করে বিজেপি নেতাদের কালো পতাকা দেখানো হবে এমনটাই জানিয়েছে কৃষক সংগঠনগুলি।

আরও পড়ুন-মুখ্যমন্ত্রীকে ভিডিও বার্তায় বহিরাগত আখ্যা দিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ কেএল‌ও প্রধানের।

এই পরিপেক্ষিতে ভারতীয় কিষান ইউনিয়নের নেতা রাকেশ টিকায়েত মন্তব্য করেছেন, “কিষান সংসদ থেকেই কৃষকরা এই মুখ পবির সরকার কে জাগিয়ে তোলার কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। ‌ কৃষকদের ক্ষমতাকে খাটো করে দেখেছে কেন্দ্রীয় সরকার সেটা তারা চরম ভুল করছে। ‌ কৃষকরা সংসার চালাতে জানি সেই সাথে যারা তাদের দাবি-দাওয়া এড়িয়ে চলতে চায় তাদের যথার্থ শিক্ষা দিতেও জানে কৃষকরা।”দিল্লিতে গত ২৬ শে জানুয়ারি ব্যাপক বিক্ষোভ দেখিয়েইলো আন্দোলনরত কৃষকরা।

আরও পড়ুন-“দেশবাসীর মনের কথা বুঝলে এই অবস্থা হতো না”- টিকাকরণের গতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করলেন রাহুল গান্ধী

দিল্লির লালকেল্লায় ঢুকে ভাঙচুর পর্যন্ত চালিয়েছিলো কৃষকরা। ভারতের পতাকা নামিয়ে নিজেদের পতাকা লাগিয়ে দিয়েছিলো আন্দোলনরত কৃষকরা জানিয়ে সারা ভারতের বুকে যথেষ্ট সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল এই আন্দোলনকে। তারপরই কৃষক সংগঠনের নেতৃত্ব কৃষকদের যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণে থাকার নির্দেশ দিয়েছিলো। রাকেশ টীকায়েত বলেছিলেন যে, “কৃষকদের ট্রাক্টর লালকেল্লার রাস্তা ছাড়াও সংসদ ভবনের রাস্তা ধরতে পারবে।”

Related Articles

Back to top button