বিজেপি নেত্রী লকেটের গাড়ির কাঁচ ভাঙার ঘটনায় কমিশনের দ্বারস্থ তৃণমূল;নিজেই কাঁচ ভেঙেছেন লকেট,ভিডিও ফুটেজ নিয়ে দাবি শাসক দলের!

বিজেপি নেত্রী লকেটের গাড়ির কাঁচ ভাঙার ঘটনায় কমিশনের দ্বারস্থ তৃণমূল;নিজেই কাঁচ ভেঙেছেন লকেট,ভিডিও ফুটেজ নিয়ে দাবি শাসক দলের!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-গতকাল চতুর্থ দফার নির্বাচনের শুরু থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা উত্তপ্ত হতে দেখা গিয়েছে।প্রথম তিন দফায় নির্বাচন মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হলেও চতুর্থ দফা যেন শুরু থেকেই অশান্তির আগুনে সীমাবদ্ধ ছিল সমস্ত এলাকা। কোচবিহারে ৫ যুবকের মৃত্যুর পাশাপাশি বিভিন্ন জায়গায় বোমাবাজি, প্রার্থীদের মারধোর থেকে শুরু করে একাধিক ঘটনা ঘটতে দেখা যায় গতকাল।

এর মধ্যে সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় এর গাড়িতে হামলার ঘটনা। প্রসঙ্গত হঠাৎ করেই গতকাল চুঁচুড়া বিধানসভা কেন্দ্রের ৬৬ নম্বর বুথে পৌঁছন বিজেপি প্রার্থী লকেট। এরপর ইভিএম এর সামনে এক মহিলাকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে লকেটের সন্দেহ হয়। এর পরেই ওই বুথে ছাপ্পা ভোট চলছে বলে দাবি করতে থাকেন চুঁচুড়া কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী।প্রথমে কিছুক্ষন তাকে বোঝানোর চেষ্টা করা হলেও শেষ পর্যন্ত স্থানীয় কিছু মানুষ হঠাৎ করেই তার উপর আক্রমণ চালাতে শুরু করেন।

আরও পড়ুন-ঘরের ভেতরেই দারুন কায়দায় নাচ দেখিয়ে দেখিয়ে ছেলেকে খাওয়াচ্ছেন অভিনেত্রী পূজা ও তার স্বামী, ভাইরাল ভিডিও!

লকেটের দাবি অনুযায়ী, তাকে হেনস্থা করার পাশাপাশি ইটপাটকেল ছুড়ে তার গাড়ির কাঁচ ভেঙে দেওয়া হয়। এরপরেই সংবাদমাধ্যমে ঘটনাটি নিয়ে প্রতিবাদের ঝড় উঠতে থাকে। তৃণমূলের আশ্রিত দুষ্কৃতিরাই এমন কাজ করেছে বলে অভিযোগ জানান বিজেপি কর্তৃপক্ষ।বাকবিতন্ডা চরম পর্যায়ে পৌঁছে শেষ পর্যন্ত ঘটনায় মুখ খুলতে বাধ্য হয় তৃণমূল কংগ্রেস। সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে তৃণমূলের দুই সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন এবং দোলা সেন একটি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেন জনসম্মুখে।

এই ভিডিওতে দেখা যায় অস্থিরতা চলাকালীন হঠাৎ করেই লকেটের গাড়ির কাঁচ ভেতর থেকে ভেঙে ফেলা হয়।ভিডিওটি প্রকাশ করে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হয় কোন রকম অশান্তির ফলে নয় বিতর্ক সৃষ্টি করার জন্যই নিজের গাড়ির কাঁচ বিজেপি নেত্রী নিজেই ভেঙেছেন। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানিয়েছে তৃণমূল। ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ পাওয়ার পর আর এই ঘটনায় কোনো প্রতিক্রিয়া জানাননি লকেট চট্টোপাধ্যায়। সম্পূর্ণ ঘটনার তদন্ত জানিয়ে প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। উল্লেখ্য জানিয়ে রাখি, এই ভিডিওটির কোন সত্যতা এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি।