নিউজটেক নিউজরাজ্য

প্রবল বৃষ্টিতে বিপজ্জনকভাবে জল বাড়ল ভাগীরথীর। জল ঢুকেছে নদীয়ার বেশ কয়েকটি গ্রামে

নিজস্ব প্রতিবেদন: টানা ২ সপ্তাহ ধরে রাজ্যের মাটিতে ব্যাপক বৃষ্টিপাতের দেখা মিলেছে। টানা বৃষ্টিপাতের প্রভাবে রাজ্যের বেশ কিছু জায়গায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই জটিলতর হয়ে উঠছে। একেই বাংলার মাটিতে জারি রয়েছে টানা বৃষ্টিপাত, আবার তার উপর নাগাড়ে জল ছেড়ে যাচ্ছে ডিভিসি।

এর ফলে রাজ্যের বেশ কিছু জায়গায় ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এখনো পর্যন্ত খানাকুল এবং ঘাটালের বেশ কিছু এলাকায় বন্যা পরিস্থিতি রয়েছে। এবার এই বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে আগামীকাল মঙ্গলবার ঘাটাল র‌ওনা হচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এর আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘাটাল র‌ওনা হ‌ওয়ার কথা থাকলেও তিনি ঘাটাল যেতে পারেননি খারাপ আবহাওয়ার কারণে।

আরও পড়ুন-আগামীকাল বন্যা পরিস্থিতি দেখতে ঘাটাল যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শীলাবতী নদীর জল দুকূল ছাপিয়ে ঘাটালের মাটিতে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে।এদিকে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে ভাগীরথীর জল বিপজ্জনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় জলমগ্ন হয়েছে নদীয়ার শান্তিপুর ব্লকের বেশ কয়েকটি গ্রাম।জানা গিয়েছে নদীয়ার লক্ষীকান্তপুর থেকে গয়েশপুর গ্রাম যাওয়ার অন্যতম যে প্রধান সড়কটি রয়েছে তার উপর দিয়ে জল বয়ে চলেছে বিপজ্জনকভাবে। এই রাস্তাটি একমাত্র ভরসা হওয়ার ঝুঁকি নিয়েই তার উপর দিয়ে পারাপার করছেন মানুষজন।

আরও পড়ুন-বন্যায় বিপর্যস্ত বাঁকুড়ার মানুষের পাশে দাঁড়ালেন বিধায়ক চন্দনা বাউড়ি

রীতিমতো দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছে লক্ষীকান্তপুর এবং গয়েশপুর গ্রামের বাসিন্দারা ।এছাড়াও নদীয়ার ইসলামপুর গ্রামের রাস্তায় প্রবল বৃষ্টিতে ধ্বস নামায় কোনরকম যানবাহন ওই রাস্তাটি দিয়ে এখন যেতে পারছে না যার ফলে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে গ্রামবাসীদের। নদীয়ার হরিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত নতুনগ্রাম, হালদারপাড়া, চৌধুরীপাড়া প্রভৃতি গ্রামগুলিতে ভাগীরথীর জল ঢুকে রীতিমতো বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। কোথাও কোথাও দেখা গিয়েছে কোমরসমান জল এবং আবার কোথাও কোথাও একজন মানুষের মাথার সমান জল দাঁড়িয়ে গিয়েছে।

এছাড়াও বহু কৃষিজমি জলের তলায় চলে যাওয়ায় চাষীরাও রীতিমতো সঙ্কটজনক পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছেন।

Related Articles

Back to top button