নিউজকলকাতাপলিটিক্সরাজ্য

ক্রমাগত দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিল বান সংগঠনগুলি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে বাংলা দখলের লড়াইয়ে আইএস‌এফ এবং কংগ্রেসকে সাথে নিয়ে লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছিলো সিপিএম। কিন্তু একুশের ভোটে রাজ্যে খাতাই খুলতে পারেনি বাম দল। যার জন্য বাম কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখা দিয়েছে। অনেকেই আইএস‌এফের সাথে জোটের ব্যাপক বিরোধিতা করেছে।

বাম শরিকরা চাইছে ভোট-পরবর্তী বামফ্রন্টকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে। সিপিএমের রাজ্য কমিটির বৈঠকেও আইএস‌এফের সাথে জোট করার বাস্তবতা নিয়ে যথেষ্ট অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে। সাঁইবাড়ি হত্যাকান্ড নিয়ে সিপিএম নেতা বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য ফেসবুক পোস্টে ‘কংগ্রেসী গুন্ডা’ শব্দের ব্যবহার করায় প্রবল আপত্তি জানিয়ে সিপিএমকে চিঠি দিয়েছে কংগ্রেস।

আরও পড়ুন-“তৃণমূল থেকে যারা বিজেপিতে গিয়েছেন তাদের সাথে বিজেপি মানিয়ে নিতে পারছে না।”- বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে সরব হলেন বিজেপি সাংসদ সুনীল মন্ডল

এছাড়াও প্রদেশ কংগ্রেসের বেশ কয়েকজন নেতারা রাহুল গান্ধী এবং সোনিয়া গান্ধীকে ইমেইল করে জোটের ভবিষ্যৎ বিবেচনা করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে। সিপিএম বর্তমানে ১৬ টি দলের ঐক্যে জোর দিচ্ছে। গতকাল বামফ্রন্টের বৈঠকে জোটের প্রসঙ্গ তুললে সিপিএম নেতৃত্ব এই জোটের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছে। বামজোটের উপরে অধিক গুরুত্ব আরোপ করছে সিপিএম।

আরও পড়ুন-আবার রাজ্যে ফিরতে চলেছে কন্টেইনমেন্ট জোন। বিজ্ঞপ্তি জারি করলো নবান্ন।

এদিকে ফরওয়ার্ড ব্লক কে নিয়ে বামফ্রন্টের মধ্যে বেশ কিছু সমস্যার উদ্রেক হয়েছিল। বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসুর মধ্যস্থতায় এই সমস্যা নিরসন হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।এই আবহের মধ্যে গতকাল বামফ্রন্টের বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে ক্রমাগত রাজ্যে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বৃহত্তম আন্দোলনে নামতে চলেছে বামফ্রন্ট।

এই আন্দোলনের মাধ্যমে বাম সংগঠন গুলির মধ্যে ঐক্য গড়ে তোলা সম্ভব হবে।আরএসপি নেতা মনোজ ভট্টাচার্য্য বলেছেন, “নির্বাচনে বামফ্রন্টের বিপর্যয়ের কারণ অনুসন্ধান করে দেখা হচ্ছে। আমাদের কর্মসূচি নিয়ে পর্যালোচনা করা হয়েছে। আগামী ১৫ দিন রাজ্যে ক্রমাগত মূল্যবৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিবাদ আন্দোলন করবে এবং সংগঠনগুলি।”

Related Articles

Back to top button