সম্পত্তি বিক্রি করে কোটি টাকার অত্যাধুনিক গ্যাজেট কিনেছিলো আসিফ। মালদা-কান্ডে ঘনীভূত হচ্ছে রহস্য।

সম্পত্তি বিক্রি করে কোটি টাকার অত্যাধুনিক গ্যাজেট কিনেছিলো আসিফ। মালদা-কান্ডে ঘনীভূত হচ্ছে রহস্য।

নিজস্ব প্রতিবেদন: পরিবারের চারজনকে খুন করে বাড়িতেই পুঁতে রাখার অভিযোগে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মালদার কালিয়াচকে। জানা গিয়েছে এই বীভৎস হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বাড়ির ছোটো ছেলে আসিফ মহম্মদ । নিজের বাবা , মা , বোন এবং ঠাকুমাকে খুন করে বাড়িতেই পুঁতে রেখেছিলো সে। জানা গিয়েছে এই হত্যাকান্ড সে ঘটিয়েছে চারমাস আগে।

বাড়ির চারজনকে হত্যা করে বাড়ি লাগোয়া গোডাউনে পুঁতে রেখেছিলো সে। তার দাদা প্রাণভয়ে পালিয়েছিলো‌ বলে জানিয়েছে। তারপরে বাড়ি ফিরে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছে গত শুক্রবার। তারপরেই ১৯ বছরের ওই যুবককে পুলিশ গ্রেফতার করলে জেরায় সে নিজের কুকীর্তির কথা স্বীকার করে নেয়।

আরও পড়ুন-প্রকাশিত হলো উচ্চ প্রাথমিকের ইন্টারভিউ এর নোটিশ!

সে জানিয়েছে যে দীর্ঘ চারমাস আগে বাবা মা সহ মোট চারজনকে খুন করেছে। কিন্তু কি কারণে সে এই হত্যাকান্ড চালিয়েছে সেই ব্যাপারে এখনো পুলিশকে কিছু জানায়নি সে।এদিকে গত শনিবার রাতে আসিফকে জেরা করার পর তার দুই বন্ধু মোহাম্মদ মাহফুজ এবং সাবির আলি কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে পাওয়া গিয়েছে পাঁচটি সেভেন এম এম পিস্তল , ১০ টি ম্যাগাজিন এবং ৮৪ রাউন্ড গুলি।

আরও পড়ুন-ভারত খুব শীঘ্রই এক বিশ্ব এক স্বাস্থ্যের পথ দেখাবে সকলকে।”- যোগদিবসে বললেন প্রধানমন্ত্রী

ধৃত তরুণেরা পুলিশকে জানিয়েছে যে মোটা টাকা দিয়ে ওই অস্ত্রগুলি তাদের কাছে রাখতে দিয়েছিলো আসিফ। পুলিশের অনুমান সম্ভবত আসিফের উদ্দেশ্য ছিলো বাবা মা এবং পরিবারের বাকি সদস্যদের গুলি করে খুন করা। কিন্তু পরিকল্পনা বানচাল হয় তার।আসিফের ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে অত্যাধুনিক উন্নত ইলেকট্রনিক গ্যাজেট। সে কেন এই অত্যাধুনিক যন্ত্র নিজের বাড়িতে বসিয়েছিলো তা তদন্ত করছে পুলিশ।

আরও পড়ুন-মাত্র ১ টাকায় ৫ কেজি টাটকা সবজি; নতুন প্রকল্প এনে কামারহাটিতে অসহায় মানুষের পাশে মদন মিত্র।

জঙ্গী যোগের বিষয়টিও এক্ষেত্রে উঠে আসছে। ওই যন্ত্রগুলি পরীক্ষা করে দেখার জন্য বিশেষজ্ঞ দের সাহায্য নিচ্ছে পুলিশ। অনলাইনে এই অত্যাধুনিক যন্ত্রগুলি কিনতো আসিফ। এর জন্য সে বিক্রি করে দিয়েছিলো তার বাবার দুটি লরি, একটি বোলেরো গাড়ি, দুটি মোটরবাইক, পাঁচ বিঘা চাষের জমি এবং ৬ বিঘা লিচুবাগান।

কোটি টাকার‌ও উপরে খরচ করেছে সে এই যন্ত্রগুলির পিছনে। তার ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বেশ কিছু দামী মোবাইল ফোন, ওয়াকি টকি, রাউটার, ল্যাপটপ সহ নানান অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি। এমনকি এর মধ্যে বেশ কিছু যন্ত্রপাতি কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা জানেন‌ই না পুলিশ অফিসাররা। তাই এবার বিশেষজ্ঞদের সাহায্য নিচ্ছে পুলিশ।