অশোকনগরে এবং মঙ্গলকোটে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ। খারিজ করল নির্বাচন কমিশন।

অশোকনগরে এবং মঙ্গলকোটে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ। খারিজ করল নির্বাচন কমিশন।

নিজস্ব প্রতিবেদন: আজ রাজ্যের বুকে ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হচ্ছে। এই ভোট ঘিরে অত্যন্ত কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রচুর পরিমাণে আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে রাজ্যে ‌ । কেন্দ্রীয় বাহিনী সদা তৎপর হয়ে রয়েছে যাতে এই ভোটগ্রহণকে কেন্দ্র করে কোনরকম অশান্তি ঝামেলা সৃষ্টি না হয়। ‌ কিন্তু কেন্দ্রীয় বাহিনীর সক্রিয়তা সত্বেও বিভিন্ন জায়গা থেকে উঠে আসছে বিক্ষিপ্ত হিংসা হানাহানির ঘটনা।

কোচবিহারের শীতলকুচি তে গত দফার ভোটে ঘটে গিয়েছে এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা। কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘেরাও করতে এসে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মারা গিয়েছে ৪ তৃণমূল সমর্থক। এই ঘটনার পরেই যথেষ্ট উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে বাংলার রাজনৈতিক পটভূমিকায়। এই ঘটনার পরই নির্বাচন কমিশন বুথের ২০০ মিটারের মধ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলি চালানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। প্রয়োজনে গ্রেফতারের আদেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

আরও পড়ুন-“শীতলকুচি করার ইচ্ছা রয়েছে?”- প্রতাপপুরে পুলিশকে শাসানি তৃণমূল নেতার।

এরপর আবার আজ ষষ্ঠ দফার ভোট চলাকালীন উত্তর ২৪ পরগণার অশোকনগর এবং পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোটে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে।জানা গিয়েছে , পঞ্চম দফার ভোট চলাকালীন উত্তর ২৪ পরগনার দেগঙ্গা এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে শুনানি গুলি চালানোর অভিযোগ করেছিল তৃণমূল। কিন্তু নির্বাচন কমিশন জানিয়েছিল এরকম কোনো ঘটনা ঘটেনি।

আজ আবার কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে অশোকনগর এবং আমডাঙা বিধানসভার অন্তর্গত বালিশা এবং টাংরায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে। এছাড়াও পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোটে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে শূন্যে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে। এর ফলে আবার ফিরে এসেছে শীতলকুচির চাঞ্চল্যকর কাণ্ডের আবহ।কিন্তু নির্বাচন কমিশন কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ওঠা এই দুটি অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছে। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী কোথাও গুলি চালায় নি।