নিউজপলিটিক্সরাজ্য

আইএস‌এফ , কংগ্রেসকে পাশে নিয়েই বাম শরিকদের ঐক্যে জোর দিচ্ছে আলিমুদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে বাংলা দখলের লড়াইয়ে আইএস‌এফ এবং কংগ্রেসকে সাথে নিয়ে লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছিলো সিপিএম। কিন্তু একুশের ভোটে রাজ্যে খাতাই খুলতে পারেনি বাম দল। যার জন্য বাম কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখা দিয়েছে। অনেকেই আইএস‌এফের সাথে জোটের ব্যাপক বিরোধিতা করেছে।

বাম শরিকরা চাইছে ভোট-পরবর্তী বামফ্রন্টকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে। সিপিএমের রাজ্য কমিটির বৈঠকেও আইএস‌এফের সাথে জোট করার বাস্তবতা নিয়ে যথেষ্ট অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে। সাঁইবাড়ি হত্যাকান্ড নিয়ে সিপিএম নেতা বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য ফেসবুক পোস্টে ‘কংগ্রেসী গুন্ডা’ শব্দের ব্যবহার করায় প্রবল আপত্তি জানিয়ে সিপিএমকে চিঠি দিয়েছে কংগ্রেস।

আরও পড়ুন-“অন্য দলে গিয়েছেন। উনার এবার বিধায়ক পদ ছাড়া উচিৎ।”- মুকুল প্রসঙ্গে বললেন দিলীপ ঘোষ।

এছাড়াও প্রদেশ কংগ্রেসের বেশ কয়েকজন নেতারা রাহুল গান্ধী এবং সোনিয়া গান্ধীকে ইমেইল করে জোটের ভবিষ্যৎ বিবেচনা করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে। সিপিএম বর্তমানে ১৬ টি দলের ঐক্যে জোর দিচ্ছে। গতকাল বামফ্রন্টের বৈঠকে জোটের প্রসঙ্গ তুললে সিপিএম নেতৃত্ব এই জোটের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছে। বামজোটের উপরে অধিক গুরুত্ব আরোপ করছে সিপিএম।

আরও পড়ুন-অসুস্থ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মা। ভর্তি রয়েছেন এস‌এসকেএমে। দেখতে গেলেন অভিষেক

সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেছিলেন, “আমরা কাউকেই জোট থেকে বের করে দিতে রাজি নই। তবে যদি কেউ জট ছেড়ে বেরিয়ে যেতে চান তাহলে তারা যেতে পারেন।”কিছুদিন পরেই ১৬ টি বাম দলকে একসাথে বৈঠকে ডাকতে চলেছে সিপিএম। সিপিএম চাইছে ঐক্যবদ্ধ বাম দলকে আরো শক্তিশালী করে তুলতে।

Related Articles

Back to top button