নিউজপলিটিক্সরাজ্য

আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে কড়া চিঠি দিলো কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মীবর্গ ও প্রশিক্ষণ বিভাগ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: আবার আলাপন ইস্যুতে তরজার সৃষ্টি হয়েছে রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যে । রাজ্যের মুখ্য সচিব পদে আসীন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এর কার্যকালের মেয়াদ ছিল গত ৩১ শে মে নাগাদ। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর আবেদনের ভিত্তিতে তার মেয়াদ আরো ৩ মাস বৃদ্ধি করেছিল কেন্দ্র। কিন্তু কলাইকুন্ডা ঘটনার পরেই দিল্লিতে বদলি করা হয়েছিল আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় কে।

কিন্তু দিল্লি না গিয়ে তিনি অবসর নিয়েছেন গত ৩১ শে মে। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী তাকে প্রধান উপদেষ্টা পদে আসীন করেছেন। ৩ বছরের মেয়াদের ভিত্তিতে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে মুখ্য উপদেষ্টা পদে নিয়োগ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত মে মাসের ২৭ তারিখে প্রধানমন্ত্রী বাংলা এবং ওড়িশার ইয়াস বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনে এসেছিলেন।

আরও পড়ুন-ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শমতো বিরোধী দলগুলোকে নিয়ে আজ বৈঠক ডেকেছেন শরদ পাওয়ার।

কলাইকুন্ডায় মুখ্যমন্ত্রীর সাথে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল প্রধানমন্ত্রীর। কিন্তু ওই বৈঠকে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী উপস্থিত থাকার দরুন মুখ্যমন্ত্রী ওই বৈঠকে অংশগ্রহণ করেননি। এর সাথে যুক্ত হন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। ‌ তৎকালীন রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এই বৈঠকে উপস্থিত না হয় তাঁর পদের অমর্যাদা করেছেন এবং শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন বলে অভিযোগ তোলে কেন্দ্রীয় সরকার যার দরুন তাঁকে শোকজ নোটিশ পাঠায় কেন্দ্র।

আরও পড়ুন-“৩০ দিনের মধ্যে উত্তর না দিলে নেওয়া হবে কড়া পদক্ষেপ।”- আবার আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি কেন্দ্রের। নিন্দা তৃণমূলের।

এবার আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় কে আবার শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে চিঠি পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় কর্মীবর্গ দপ্তর। তাঁকে জানানো হয়েছে যে , অল ইন্ডিয়া সার্ভিস রুলের ৮ নম্বর ধারা অনুযায়ী তাঁকে এই চিঠি দেওয়া হয়েছে। তিনি যদি আগামী ৩০ দিনের মধ্যে এই চিঠির উত্তর না দেন তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেবে কেন্দ্রীয় কর্মীবর্গ দপ্তর। তাকে চিঠি দিয়ে বলা হয়েছে যে আগামী ৩০ দিনের মধ্যেই তিনি যদি আত্মপক্ষ সমর্থন না করেন তাহলে অবসরকালীন সুযোগ-সুবিধা থেকে তাঁকে বঞ্চিত করতে পারে কেন্দ্রীয় সরকার।

এছাড়াও তিনি লিখিত জবাব দেবেন, না সশরীরে হাজির হবেন সেটাও চিঠি দিয়ে জানাতে হবে তাঁকে।

Related Articles

Back to top button