“নির্বাচনে জয়লাভ করে মাথা নত করে বাংলার ভূমি ছুঁয়ে প্রণাম করব”- ভার্চুয়াল জনসভা থেকে প্রতিশ্রুতি দিলেন প্রধানমন্ত্রী।

“নির্বাচনে জয়লাভ করে মাথা নত করে বাংলার ভূমি ছুঁয়ে প্রণাম করব”- ভার্চুয়াল জনসভা থেকে প্রতিশ্রুতি দিলেন প্রধানমন্ত্রী।

নির্বাচন কমিশন: রাজ্যে বেড়েছে মাত্রাতিরিক্ত করোনা সংক্রমণ। কলকাতা হাইকোর্ট নির্বাচন কমিশনকে অত্যন্ত ভর্ৎসনা করে বলেছে যে, “হোটেলেই আবহে নির্দিষ্টভাবে করোনা বিধি মেনে চলা হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশন এর হাতে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে কিন্তু সেই ক্ষমতা সদ্ব্যবহার করছে না কমিশন।”

এরপরই রাজ্যজুড়ে রাজনৈতিক সংগঠন গুলির মিটিং মিছিল এবং বড় জনসভা নিষিদ্ধ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। ‌ বিজেপি, তৃণমূল, বাম সংযুক্ত মোর্চা সকলেই বড়ো জনসভা করবে না আর। এমনিতেই বাম সংযুক্ত মোর্চা আগেই জানিয়ে দিয়েছিল যে তারা কোনো বড় প্রচার সভা চালাবে না, তার পরিবর্তে সোশ্যাল মিডিয়া এবং মানুষের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে প্রচার চালানোর কথা বলেছিল বাম সংগঠন গুলি। ‌

আরও পড়ুন-সাংঘাতিক রোদে অস্বস্তির মধ্যে পড়তে চলেছেন রাজ্যবাসী। তাপমাত্রা যেতে চলেছে ৪০ ডিগ্রিতে।

তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা করেছেন যে তিনি এবার থেকে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে জনসভা সম্পন্ন করবেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী করোনার এই আবহে পশ্চিমবঙ্গের বুকে তার সমস্ত জনসভা বাতিল করেছেন। গতকাল তিনি ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বক্তৃতা রেখেছেন বাংলাবাসীর উদ্দেশ্যে। তিনি বলেছেন,”গত ছয় দফা নির্বাচনে আপনারা বিজেপিকে সমর্থন জানিয়েছেন, তার জন্য আপনাদেরকে অশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।

বাংলার প্রতিটি ঘরে ঘরে মানুষের কথা শুনে এটাই জানতে পেরেছি যে প্রত্যেকেই সোনার বাংলা তৈরীর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন। সোনার বাংলা তৈরি করার সংকল্প নিয়ে এগিয়ে চলেছি আমরা। এই নির্বাচনে শুধু বাংলার পরিবর্তন হবে না, এই নির্বাচনে মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার পরিবর্তন হবে। বাংলায় বিজেপি এলে মহিলারা সুরক্ষা পাবেন, যুব সম্প্রদায় চাকরি পাবে। ‌ বাংলায় থাকবে না কোনো দুর্নীতি বা ভ্রষ্টাচার। বাংলা থেকে গুন্ডারাজ এর অবসান হবে। আমরা বাংলায় উন্নয়নের জোয়ার নিয়ে আসব। আগামী ২ রা মে নির্বাচনে জয়লাভের পর আমার মাথা নত করে বাংলার ভূমি ছুঁয়ে আমি প্রণাম করব।”