নিউজপলিটিক্স

নির্বাচনের পরেই বাংলার আগামী মুখ্যমন্ত্রী সম্পর্কে বিস্ফোরক দাবি দিলীপ ঘোষের

নিজস্ব প্রতিবেদন: বারবার প্রচারের শিরোনামে উঠে আসছেন দিলীপ ঘোষ। তিনি কিছুদিন আগেই বলেছেন, “যারা খেলা হবে বলে শুরু করেছিল তারা এখন খেলা ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছে। ‌ বিজেপি একুশের ভোটে পাঁচ দফায় ১৮০ টি আসনের মধ্যে ১২৫ টির‌ও বেশী আসনে জিতবে। ২০০ টি সিট পেয়ে বিজেপি এবারে সরকার গঠন করবে। তৃণমূল বলছে তিন দফার ভোট একসাথে করে দিতে। ‌ আসলেই মিটিং করতে গেলে অনেক বক্তা লাগবে, কিন্তু ভয়ে কেউ বের হতে চাইছে না।

ম্যাচের রেজাল্ট নির্ধারিত হয়ে গিয়েছে। ‌ আমরা খালি সময়টা পূরণ করব। কেন্দ্রীয় বাহিনী তাদের দায়িত্ব খুব ভালোভাবেই পালন করছে। তৃণমূল এখন হেরে গিয়েছে এটা বিলক্ষণ বুঝতে পেরেছে, তাই তারা ভোট ছেড়ে পালিয়ে যেতে চাইছে।” এছাড়াও পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে দিলীপ ঘোষ আরো বলেছেন, “দিদি বলেছিলেন যে খেলা হবে, কিন্তু এখন তিনি বলছেন হুইল চেয়ার ঠেলা হবে। এখন দিদিই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বাংলায় সাদা শাড়ির দিন শেষ। দিদির এই সাদা শাড়ি বাংলার মানুষকে অনেক বোকা বানিয়েছে। ‌ বাংলায় আর সাদা শাড়ি নয় এবার আসবে সাদা দাড়ি।”

আরও পড়ুন-এবারে বাংলায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াই তৃণমূল এবং বিজেপির। ধারে কাছে নেই বাম সংযুক্ত মোর্চা।

একুশের ভোটের অন্তিম দফা গতকাল শেষ হয়ে গিয়েছে । এবারে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন যে বাংলায় আবার তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় আসতে চলেছে তৃণমূল। কিন্তু এই সমীক্ষা কে গুরুত্ব দিতে নারাজ দিলীপ ঘোষ। বেশ কয়েকটি নিউজ চ্যানেল বুথফেরত সমীক্ষায় জানিয়েছে যে এবারে বাংলায় তৃণমূল এবং বিজেপির হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হলেও দৌড়ে কিছুটা এগিয়ে রয়েছে তৃণমূল। কিন্তু দিলীপ ঘোষ বলেছেন, “এবারে বাংলায় বিজেপি ক্ষমতায় আসছে।

তাই এখন থেকে সমস্ত নথিপত্র গায়েব করে দেওয়া হবে এবং আগুন‌ও লাগিয়ে দেওয়া হতে পারে। রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি আয়ত্তের বাইরে চলে যাওয়ার অন্যতম কারণ হলো রাজ্য সরকারের গাফিলতি। বাংলায় এবার বিজেপির প্রতিনিধিই মুখ্যমন্ত্রী পদে বসবে।”তবে দিলীপ ঘোষ পরিষ্কার করে বলেননি যে, বিজেপি ক্ষমতায় এলে কে হবেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী !

Related Articles

Back to top button