একুশের ভোটের পর দিল্লিতে প্রথম মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাক্ষাৎ হতে চলেছে।

একুশের ভোটের পর দিল্লিতে প্রথম মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাক্ষাৎ হতে চলেছে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: এই মাসেই দিল্লি সফরে রওনা হচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । দিল্লি গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করার জন্য তিনি সময় প্রার্থনা করেছিলেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর সাথে কি কি বিষয়ে তিনি পর্যালোচনা করবেন সেই বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি মুখ্যমন্ত্রী। ‌ মুখ্যমন্ত্রী গত ১৫ ই জুলাই বলেছিলেন যে,”ভোটে জয়লাভ করার পর আমি দিল্লি যেতে পারিনি কারণ বাংলায় তখন করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়েছিলো।

বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে অনেকটাই লাগাম টানা গিয়েছে। ‌ যার জন্য আমি এবার সংসদে যাব সেখানে আমার পুরনো এবং নতুন বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হবে। প্রতিবারই আমি সংসদে যাই। ‌ এবার এগিয়ে দিল্লিতে আমি সমস্ত নেতাদের সাথে বৈঠক করব।

আরও পড়ুন-মদন মিত্র কথা রাখলেন। ইস্টবেঙ্গলকে করলেন এক মাসের বেতন সাহায্য

‌ প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতির সাথে বৈঠক করার জন্য আমি সময় প্রার্থনা করেছি।”এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন মতো তাঁকে সময় দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এই পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন,”আমি দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দিচ্ছি। ‌ ওখানে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে বৈঠক সম্পন্ন করব।

আরও পড়ুন-“গণতন্ত্রের নামে স্বৈরতন্ত্র চলছে। সুপার এমার্জেন্সি চলছে।”- আবার পেগাসাস ইস্যুতে কেন্দ্রকে আক্রমণ মুখ্যমন্ত্রীর।

প্রধানমন্ত্রী আমাকে সময় দিয়েছেন । এরপরে রাষ্ট্রপতির সাথে সাক্ষাৎ করব।”একুশে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে আগামী ২০২৪ এর লোকসভা ভোটের জন্য বিজেপি বিরোধী দলগুলিকে মুখ্যমন্ত্রী আহ্বান জানিয়েছেন ঐক্যবদ্ধভাবে সংযুক্ত ফ্রন্ট গঠন করে কাজ করতে। ‌ তিনি দিল্লি থাকাকালীন সমস্ত বিরোধী দলগুলোর নেতাদের আবেদন জানিয়েছেন সময় বার করে তাঁর সাথে বৈঠক সম্পাদন করার জন্য।

তাই মুখ্যমন্ত্রীর কয়েকদিনের দিল্লি সফর বাংলা তথা সারা দেশের রাজনৈতিক পরিকাঠামোয় যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত হতে চলেছে।