নিউজ

পিপিই পরে ঘামে ভিজে ১৫ ঘন্টা ধরে লড়াই চিকিৎসকের। করলেন টুইট। আলোড়ন সোশ্যাল মিডিয়ায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতি বিরাজ করছে এ দেশের বুকে। বিভিন্ন রাজ্যে দেখা দিয়েছে অক্সিজেনের চরম সংকট। এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে নিরন্তর মৃত্যুভয় কে সঙ্গী করে দিনযাপন করছেন দেশের মানুষ জন। সকলেই মৃত্যু ভয়ে তটস্থ। সকলেই প্রতিমুহূর্তে আতঙ্কে রয়েছেন যে এই হয়তো দরজায় কড়া নাড়লো মৃত্যু। প্রতিটি দেশবাসীকে অত্যন্ত সতর্ক থাকতে বলছে প্রশাসন। সকলকে বলা হচ্ছে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রাখতে এবং অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে।

এখনো পর্যন্ত সারা দেশবাসীর মধ্যে ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়নি। সকলকেই অত্যন্ত সতর্কতার সাথে কোভিড বিধি মেনে চলতে বলা হচ্ছে। এই দুর্দিনে মানুষের কাছে ভগবান হয়ে উঠেছেন তারাই যারা নিরন্তর নিজেদের জীবন বাজি রেখে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করছেন। তারা হলেন ডাক্তার এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীরা। বিশেষ করে ডাক্তার এবং নার্সরা নিরন্তর অসহ্য গরম উপেক্ষা করে পিপিই কিট পরে দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই করে চলেছেন করোনার বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন-স্টেশনে কমলালেবু বিক্রেতা থেকে চারশো কোটির মালিক । করোনা রোগীদের জন্য দান করেছেন ৮৫ লক্ষ টাকার অক্সিজেন।

অনেক চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা নিজেদের প্রাণ উৎসর্গ করেছেন করোনা রোগীদের সেবায়। দেশের মানুষ তাদেরকে সশ্রদ্ধ প্রণাম জানায়। ডাক্তাররাই আজ মানুষের কাছে ভগবান স্বরূপ। কিন্তু তারাও মানুষ , চিকিৎসকদেরও অনুভূতি রয়েছে , ক্রমাগত ঘন্টার পর ঘন্টা ডিউটি করে তারাও হয়ে উঠছেন ঘর্মাক্ত, অসুস্থ। কিন্তু জীবনের মায়া ত্যাগ করে আর তাদের সেবা করে চলেছেন অনেক চিকিৎসকরা।সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি ভাইরাল হয়ে উঠেছে। এক চিকিৎসক কে দেখা গিয়েছে পিপিই কিট খোলার পর তাঁর শরীর হয়ে উঠেছে ঘর্মাক্ত।

ঘামে রীতিমতো স্নান করে গিয়েছেন তিনি । এই ছবিটি টুইট করেছেন এক চিকিৎসক যার নাম সোহিল। গত বুধবার নিজের ঘর্মস্নাত ছবিটি টুইট করেন সোহিল, ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। প্রতিটি মানুষ তার এই লড়াই কে কুর্নিশ জানিয়েছেন।টানা ১৫ ঘন্টা পর পিপিই কিট থেকে বেরিয়ে নিজের এই ছবি প্রকাশ করে সোহিল বলেছেন, “আমরা লড়ে যাব করোনার বিরুদ্ধে, যেভাবেই হোক আমাদের জিততে হবে।

“শুধু সোহেল নন, দেশের বহু চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের জীবন হাতে নিয়ে করোনা রোগীদের সুস্থ করে তুলতে দিনরাত এক করে দিচ্ছেন। প্রতিটি দেশবাসী তাদের প্রণাম জানাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে সোহেলের মতো চিকিৎসকরাই পারেন বিশ্বকে বাঁচাতে।

Related Articles

Back to top button