নিউজ

জুতো পরে ভারতের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে, তুমুল বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: গতকাল সারা দেশজুড়ে কোভিড আবহের মধ্যেই পালিত হয়েছে ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস। সারা ভারতের মধ্যে দিল্লি, মুম্বাই, কেরালা, চেন্নাই, কাশ্মীর, কন্যাকুমারীকা সহ বিভিন্ন জায়গায় পালিত হয়েছে স্বাধীনতা দিবস।’আজাদী কা অমৃত মহোৎসব’ এর অংশ হয়েছে সারা পৃথিবী। গতকাল ১৫ ই আগস্ট সন্ধ্যা থেকে আজ ১৬ ই আগস্ট সকাল পর্যন্ত আমেরিকা থেকে শুরু করে দুবাই, ব্রিটেন, রাশিয়া প্রভৃতি দেশগুলির প্রায় ৭৫ টি গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসনিক ভবন ভারতের পতাকার রঙে সেজে উঠতে চলেছে।

আমেরিকার এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিং, দুবাইয়ের বুর্জ খলিফা, ব্রিটেনের বার্মিংহাম লাইব্রেরী, কানাডার নায়াগ্রা জলপ্রপাত সহ পৃথিবীর বিখ্যাত জায়গা গুলি পতাকার রঙে সেজে উঠেছে। সারা ভারতবাসী এই গৌরবময় মূহুর্তের সাক্ষী হতে চেয়ে অতি উৎসাহের সাথে অপেক্ষা করেছেন। এছাড়াও রাজ্যের মাটিতে বিভিন্ন জায়গায় রাজনৈতিক সংগঠন গুলির তথা সাধারণ মানুষ স্বাধীনতা দিবসের উদযাপনে মেতেছিলেন।

আরও পড়ুন –স্বাধীনতা দিবসের উদযাপনে শুভেন্দু অধিকারী স্লোগান দিলেন ‘পাকিস্তান মুর্দাবাদ’।

আর এই স্বাধীনতা দিবসের উদযাপন করতে গিয়েই বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন রাজ্যের গ্রন্থাগার মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। নিজস্ব বিধানসভা কেন্দ্র মন্তেশ্বরে জুতো পরে ভারতের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে যথেষ্ট সমালোচিত হয়েছেন সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। এছাড়াও তিনি যখন জাতীয় পতাকা উত্তোলন করছিলেন, তখন তার চারপাশে জাতীয় পতাকা মাটিতে পুঁতে রাখা ছিলো, সেগুলো বারবার তার জুতো পরিহিত পায়ে এই পতাকা গুলো ঠেকছিলো, কিন্তু তিনি সেদিকে ভ্রুক্ষেপ দেননি, যার জন্য ব্যাপক বিতর্কের ঢেউ উঠেছে সারা রাজ্য জুড়ে।

কিন্তু এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। রাজ্যের বিজেপি সহ অন্যান্য বিরোধী দলগুলি এই বিষয়টির কড়া সমালোচনা করেছে। সকলেই বলছেন যে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার সময়ে অবশ‌্য‌ই এই দিকটির দিকে ধ্যান দেওয়া উচিৎ ছিলো রাজ্যের মন্ত্রীর। বিজেপি কর্মীরা তথা বিজেপি নেতৃত্ব এই বিষয়ে জাতীয় পতাকার অবমাননার অভিযোগ তুলেছেন।

Related Articles

Back to top button