মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ভবানীপুরে প্রার্থী না দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ভবানীপুরে প্রার্থী না দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: ভবানীপুরের মাটিতে হেরে গিয়েছেন বিজেপি প্রার্থী রুদ্রনীল ঘোষ। সেখানে তৃণমূল প্রার্থী শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় বিপুল ভোটে জয়লাভ করেছেন। কিন্তু ওই আসনটি থেকে তিনি পদত্যাগ করেছেন। কারণ ওই ভবানীপুর আসনটিতে মুখ্যমন্ত্রী দাঁড়াবেন পুনরায় উপনির্বাচনের জন্য। তার কারণ নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর কাছে হেরে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।তাই নিয়মানুযায়ী তাঁকে ছয় মাসের মধ্যে কোনো একটি আসন থেকে উপ-নির্বাচনে জয়ী হয়ে আসতে হবে।

তাই শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় ভবানীপুর আসন থেকে তার বিধায়ক পদে ইস্তফা দিয়েছেন। ওই আসনে পুনর্নির্বাচন এর লড়াই করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একুশের নির্বাচনে কংগ্রেস আইএসএফ এবং ব্রামফন্টের জোট গঠিত হয়েছিলো। কিন্তু আস্তে আস্তে এই জোটের মধ্য একে অপরের সাথে দূরত্ব অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে।দল পরিচালনাকে কেন্দ্র করে দলীয় নেতাদের রোষের মুখে পড়েছিলেন অধীর চৌধুরী। কেন্দ্রীয় কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব অধীর চৌধুরীকে পরামর্শ দিয়েছিলো যে বিজেপিকে হারাতে তৃণমূল কংগ্রেসের সাহচর্য দরকার।

আরও পড়ুন-“ফেসবুকে যখন তখন যা খুশি বলা যাবে না।”- ফেসবুক লাইভ প্রসঙ্গে মদন মিত্রকে ভর্ৎসনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

কার্যত সেই পরামর্শ মেনে নিয়েছেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী।উপ নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণার আগেই প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী ঘোষণা করেছেন যে, এবারে উপনির্বাচনে ভবানীপুরের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে কংগ্রেস কোন প্রার্থী দেবে না। অধীর চৌধুরী জানিয়েছেন যে মুখ্যমন্ত্রীকে সন্মান জানাতে এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে কংগ্রেস।কিন্তু অধীর চৌধুরীর এই সিদ্ধান্তকে কটাক্ষ করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। বিজেপির শীর্ষ নেতারা বলেছেন, “যদি সম্মান জানানোই হতো তাহলে আগে কেন জানাননি অধীর চৌধুরী?”