মুকুল রায়ের করোনা আক্রান্ত স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখতে গেলেন অভিষেক। জোর জল্পনা রাজ্যজুড়ে।

মুকুল রায়ের করোনা আক্রান্ত স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখতে গেলেন অভিষেক। জোর জল্পনা রাজ্যজুড়ে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বিজেপির সভাপতি মুকুল রায়ের স্ত্রী। বর্তমানে বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হসপিটালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি। গতকাল বুধবার মুকুল রায়ের স্ত্রী কে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সময়ে হাসপাতালে উপস্থিত ছিলেন না মুকুল রায়। শুভ্রাংশু রায়ের সাথে তখন কথা বলেছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল সন্ধ্যায় ৬:২০ নাগাদ বাইপাসের ধারে ওই হাসপাতালে উপস্থিত হয়েছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

আইসিইউ তে গিয়ে মুকুল রায়ের স্ত্রী কে দেখেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। চিকিৎসকদের কাছ থেকেই তার চিকিৎসা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয় সম্পর্কে খোঁজ নেন অভিষেক। মুকুল রায়ের পুত্র শুভ্রাংশু রায়ের সাথেও কথা বলেন তিনি। তারপর কিছুক্ষণের মধ্যেই হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজনৈতিক সূত্রে খবর তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কে খুব স্নেহ করেন মুকুল রায়ের স্ত্রী। তাই উনাকে দেখতে হাসপাতালে ছুটে গিয়েছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু এই ঘটনাকে ঘিরেই আবার যথেষ্ট চর্চা শুরু হয়েছে বাংলার রাজনৈতিক পটভূমিতে।

আরও পড়ুন-মানুষের ঘরে ঘরে দুধ পৌঁছে দেওয়ার কথা বলেই ট্রোলড্ হলেন দিলীপ ঘোষ।

কারণ একুশের ভোটের আগে থেকেই মুকুল রায়ের সাথে সম্পর্ক যথেষ্ট তলানিতে এসে ঠেকেছে অভিষেকের। এহেন সেই মুকুল রায়ের স্ত্রীকে দেখতে হাসপাতালে অভিষেকের উপস্থিত হওয়াকে ঘিরে যথেষ্ট জল্পনা ছড়িয়েছে বাংলার রাজ্য রাজনীতিতে। তৃণমূলের মুখপাত্র কুনাল ঘোষ দাবি করেছিলেন যে বিজেপির বহু তাবড় তাবড় নেতা-নেত্রীরা তৃণমূলে ফিরতে চেয়ে তার সাথে যোগাযোগ করছেন।

আরও পড়ুন-“মোদী-শাহদের বিরুদ্ধেও বিপর্যয় মোকাবিলা আইন লাগু করা প্রয়োজন।”- আলাপন ইস্যুতে এবার কেন্দ্রকে আক্রমণ অভিষেকের।

এদিকে কয়েকদিন আগেই বিজেপিকে আত্মসমালোচনা করতে পরামর্শ দিয়েছেন মুকুল রায়ের পুত্র শুভ্রাংশু রায়। একুশের ভোট পর্বে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘শুভেন্দু অধিকারীর মত মুকুল রায় অতটা খারাপ নয়।’এছাড়াও মুকুল রায় শপথ নেওয়ার দিন মন্তব্য করেছিলেন , যা বলার ঠিক সময়ে বলবো।’ তাই হঠাৎ করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই সাক্ষাৎ ঘিরে ক্রমেই জল্পনা গাঢ় হচ্ছে রাজ্য রাজনীতিতে।