আজ অধীর রঞ্জন চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রদেশ কংগ্রেসের পর্যালোচনা বৈঠক হতে চলেছে রাজ্যে।

আজ অধীর রঞ্জন চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রদেশ কংগ্রেসের পর্যালোচনা বৈঠক হতে চলেছে রাজ্যে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে জয়জয়কার তৃণমূল কংগ্রেসের। ধরাশায়ী হয়েছে বিজেপি। ২১৩ টি সীট নিয়ে আবার সরকার গঠন করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। সেই জায়গায় ৭৭ টি সীট নিয়ে প্রধান বিরোধীদল রূপে অবতীর্ণ হয়েছে বিজেপি।

কিন্তু স্বাধীনতার পূর্ববর্তী সময়ে থেকে ভারতের মাটিতে দাপিয়ে রাজনীতি করে আসা কংগ্রেস খাতাই খুলতে পারেনি একুশের ভোটে। এমনকি কংগ্রেসের গড় মুর্শিদাবাদে রীতিমতো ধরাশায়ী কংগ্রেস। বামফ্রন্টের সাথে আইএস‌এফ এবং কংগ্রেসের মহাজোট বাংলায় কোনো প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি। এর ফলে এই মহাজোটের বিরোধিতা করে সরব হয়েছে কংগ্রেস কর্মী সমর্থকরা।

আরও পড়ুন-“শিশির অধিকারী এবং সুনীল মন্ডলের অবস্থান জানতে পাঠানো হয়েছে নোটিশ”- জানালেন লোকসভার অধ্যক্ষ।

‌ কেন্দ্রীয় কংগ্রেসের বেশ কয়েকজন নেতা এর দায় চাপিয়ে দিয়েছেন অধীর রঞ্জন চৌধুরীর উপরে। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির নেতৃত্বে আজ প্রদেশ কংগ্রেসের প্রথম বৈঠক আয়োজিত হয়েছে কলকাতার মৌলালির প্রদেশ কংগ্রেসের সদরদপ্তর বিধান ভবনে। কংগ্রেসের বিভিন্ন পদাধিকারী, শাখা সংগঠন গুলির প্রধান, জেলা সভাপতি, প্রাক্তন কংগ্রেস বিধায়ক এবং বিভিন্ন কমিটি গুলিকে নিয়ে এই বৈঠক হতে চলেছে বলে জানা গিয়েছে। এআইসিসি তাদের প্রাথমিক রিপোর্ট জমা দিয়েছে।

আরও পড়ুন-শীঘ্রই খরা কবলিত এলাকায় পানীয় জল প্রকল্প শুরু করতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এই রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে বাংলায় ভোটের ফলাফল বিশ্লেষণ করতে কংগ্রেসের এই পর্যালোচনা বৈঠকে আলোচনা করা হবে। এআইসিসির পক্ষ থেকে প্রতিটি রাজ্যের করোনার আবহে সহায়তা প্রদান এবং করোনার বিস্তারিত তথ্য জোগাড় করার জন্য বিভিন্ন কমিটি গঠন করতে বলা হয়েছে। এর জন্য কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব নির্দেশ দিয়েছে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি দের। এই বৈঠকে এই বিষয়টি উত্থাপিত হতে পারে।

আরও পড়ুন-“পুরনো চাল ভাতে বাড়ে।”- হেরে যাওয়ার পর বুঝতে পারলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা।

বামফ্রন্টের বিভিন্ন শরিকদলগুলো কংগ্রেস এবং আইএসএফ এর সাথে মহাজোটের তীব্র বিরোধিতা করছে । ঠিক একই রকম বিরোধিতা করছে আপামর কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকরাও এবং রাজ্য স্তরের বিভিন্ন নেতারা। আজকের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে যে আগামী দিনে কংগ্রেস বামফ্রন্টের সাথে মহাজোটে থাকবে কি থাকবে না। প্রসঙ্গত কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় নেতা কয়েকদিন আগেই অধীর রঞ্জন চৌধুরী কে পরামর্শ দিয়েছিলেন যে তৃণমূলের সাথে জোট করা উচিত ছিল রাজ্য কংগ্রেসের।