রাজ্যে দুষ্কৃতীদের পাকড়াও করতে এসে মারধরে মৃত্যু বিহারের পুলিশ অফিসারের। শোকে মৃত্যু মায়ের। সম্পন্ন হলো একসাথে দুজনের শেষকৃত্য

রাজ্যে দুষ্কৃতীদের পাকড়াও করতে এসে মারধরে মৃত্যু বিহারের পুলিশ অফিসারের। শোকে মৃত্যু মায়ের। সম্পন্ন হলো একসাথে দুজনের শেষকৃত্য

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিহারে ক্রমশ‌ই বাড়ছে মোটর বাইক চুরির সংখ্যা। আর এই মোটর বাইক চোর ধরতে এসেই পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুরের পানাতাপড়িতে এসে দুষ্কৃতীদের বেধড়ক মারধরের মৃত্যু হল বিহারের এক পুলিশ অফিসারের। ‌ ছেলের মৃত্যু শোক সহ্য করতে না পেরে মারা গেলেন ওই অফিসারের বৃদ্ধা মা । দুজনেরই শেষকৃত্য একই সাথে সম্পন্ন হল। অত্যন্ত হৃদয়বিদারক ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুরের বুকে।

ক্রমাগত মোটর বাইক চুরির ঘটনা ঘটায় বাইক চোরদের সন্ধানে বিহার পশ্চিমবঙ্গের সীমানা দুষ্কৃতীদের ডেরায় তল্লাশিতে এসেছিলেন বিহার কিষাণগঞ্জের এস‌এইচ‌ও অশ্বিনী কুমার। দুষ্কৃতীদের ডেরায় যখন তিনি হামলা চালান তখনই তার উপর হঠাৎ চড়াও হয় দুষ্কৃতীদের একটি বিরাট দল। জানা গিয়েছে প্রায় ১০০ জনের মতো দুষ্কৃতীরা অশ্বিনী কুমারের ওপর হামলা চালিয়ে তাকে বেধড়ক মারধর করে। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন ওই অফিসার।

আরও পড়ুন-“তৃণমূলকে ভয় না পেয়ে পরিবর্তনের লক্ষ্যে বেরোচ্ছেন মানুষ।”- বললেন দিলীপ ঘোষ।

তার সাথে যে পুলিশকর্মীরা অভিযানে গিয়েছিলেন তারা ঘটনাস্থল থেকে প্রাণ ভয়ে চম্পট দেন। এই ঘটনায় ওই পুলিশ অফিসারের পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। কিন্তু আরো মর্মান্তিক ঘটনাটি তখনই ঘটে যখন ছেলের মৃত্যু সংবাদ শোনামাত্র প্রাণ হারান অফিসারের সত্তরোর্ধ্ব বৃদ্ধা মা উর্মিলা দেবী। এমনিতেই তিনি হৃদরোগে অনেকদিন থেকেই ভুগছিলেন, ছেলের মৃত্যু শোক তাকে চিরদিনের জন্য নিস্পন্দ করে দিল।

গতকাল রবিবার বিকালে নিজেদের গ্রামে ওই অফিসার এবং তার মায়ের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে একই সাথে। এলাকাজুড়ে নেমে এসেছে শোকের আবহ।এদিকে এই ঘটনায় প্রবল আলোড়নের সৃষ্টি হয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুরের এবং বিহারের বুকে, দোষীদের শাস্তির দাবিতে সরব হয়েছে জনতা।কিষাণগঞ্জ এর এসপি কুমার আশীষ জানিয়েছেন অশ্বিনী কুমারের সাথে ওই অভিযানে যাওয়া সার্কেল ইন্সপেক্টরসহ ৭ জন পুলিশকর্মীকে তারা সাসপেন্ড করে দিয়েছেন।‌ এর পাশাপাশি এই ঘটনায় তল্লাশি চালিয়ে ফিরোজ আলম নামক এক দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।